শনিবার, ২৫ মে, ২০২৪, ঢাকা

পদ্মা সেতুতে যে কারণে মোটরসাইকেল বেশি

বোরহান উদ্দিন
প্রকাশিত: ২৬ জুন ২০২২, ০৪:২৯ পিএম

শেয়ার করুন:

পদ্মা সেতুতে যে কারণে মোটরসাইকেল বেশি

স্বপ্নের সেতু এখন বাস্তবে রূপ পেয়েছে। এতদিন দূর থেকে বা টেলিভিশনের পর্দায় সেতুর অবয়ব দেখলেও রোববার থেকে সেতু পার হওয়ার সুযোগ মিলছে। যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়ার প্রথম দিনেই দীর্ঘ প্রতিক্ষিত সেতুটি দেখতে ভিড় জমিয়েছেন হাজার মানুষ। মনের কোণে চেপে রাখা উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে ভোর থেকেই দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে পদ্মা নদীর ওপর নির্মিত সেতু দেখতে আসেন তারা। তাদেরই একজন মো. হানিফ, যিনি রাজধানীর রায়েরবাজার থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে ছুটে এসেছেন পদ্মা সেতু দেখতে।

শুধু একাই নন, সঙ্গে আলাদা মোটরসাইকেলে নিয়ে এসেছেন তিন বন্ধুকে।


বিজ্ঞাপন


রোববার (২৬ জুন) সকাল দশটা থেকে দুপুর দুইটা পর্যন্ত সেতু এলাকায় এমন শত শত যুবককে মোটরসাইকেল নিয়ে পদ্মা সেতুতে ঘুরতে দেখা গেছে। কোনোটিতে দুইজন আবার কোনো বাইকে তিনজন করে এসেছেন।

ঢাকা মেইলকে মো. হানিফ বলেন, ‘মনে হতে পারে টোল কিছুটা বেশি। কিন্তু বড় পরিসরে দেখলে ঠিকই আছে। হাজার হাজার কোটি টাকার সেতু মাত্র দুইশ টাকা দিয়ে ঘুরে দেখা গেল এটা তো অনেক বড় পাওয়া।’

burhan-2প্রখর রোদের মধ্যেও হাসিখুশি মন নিয়ে অনেকে সেতুর ওপর দাঁড়িয়ে সেলফি তুলছেন। কেউ আবার সেতুতে বসে নিজের ছবি ক্যামেরাবন্দি করছেন।

এর বাইরেও অনেকে বাস থেকে নেমে, কেউ আবার মাইক্রোবাসে করে সেতু পার হয়েছেন। মাঝে সেতুর ওপর দাঁড়িয়ে ছবি তুলে নিয়েছেন। তবে সেতুতে সবচেয়ে বেশি উপস্থিতি চোখে পড়েছে মোটরসাইকেলের চালক-যাত্রীদের।


বিজ্ঞাপন


বাইকে করে স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে সেতু দেখতে এসেছেন সেলিম। সেতুর মাঝে আসার পর একপাশে বাইক রেখে ছবি তুলে নিজেদের স্মরণীয় করে রাখার চেষ্টা করছেন। তবে সেলিম হোসেন ছাড়া অন্য দুজনের কারও মাথায় হেলমেট ছিল না।

পরিবার নিয়ে এভাবে আসা নিরাপদ কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে ঢাকা মেইলকে সেলিম বলেন, ‘সামনে তো ভিড় বেড়ে যাবে। তখন সেতুতে দাঁড়ানোও যাবে না। আর টোল একশো টাকা করে। খুব বেশিও না। মাত্র দুইশো টাকায় আমাদের টাকার পদ্মা সেতু দেখার সুযোগ মিস করতে চাইনি।’

এদিকে পদ্মা সেতুর ‍দুই প্রান্তের টোল আদায় কেন্দ্রে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, মোটরসাইকেলের লেনে বেশি ভিড়। একের পর এক মোটরসাইকেল আসছে আর দ্রুত গতিতে টোল নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে।

burhan-3

অন্য পরিবহনে টোল বেশি হওয়ায় অনেক সময় ভাঙতি সমস্যা হলেও মোটরসাইকেলের চালকরা বেশিরভাগই নির্ধারিত একশো টাকা টোল দিয়ে দ্রুত যেতে পারছেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঢাকা মেইলকে টোল আদায়ের দায়িত্বে থাকা এক কর্মকর্তা বলেন, ব্যক্তিগত গাড়ি ও মোটরসাইকেল প্রথম দিনে বেশি টোল দিয়েছে। সামনে বাসের সংখ্যা বাড়বে। কারণ অনেকগুলো রুটে এখনো বাস চলাচল নির্ধারণ করা হয়নি।

তবে ঢাকা থেকে আসতে পোস্তাগোলাসহ অন্যান্য সেতু ও পদ্মার ওপারের এক্সপ্রেসওয়েতে টোল নেওয়া শুরু হলে একটি মোটরসাইকেলকে আরও বেশি খরচের মুখে পড়তে হবে।

বিইউ/এমআর

 

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

টাইমলাইন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর