শনিবার, ২৫ মে, ২০২৪, ঢাকা

মেট্রোরেল উদ্বোধন ঘিরে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

খলিলুর রহমান
প্রকাশিত: ২৭ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:২৯ এএম

শেয়ার করুন:

মেট্রোরেল উদ্বোধন ঘিরে চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

আগামীকাল বুধবার (২৮ ডিসেম্বর) উদ্বোধন হচ্ছে স্বপ্নের মেট্রোরেল। এদিন এই প্রকল্পের দিয়াবাড়ী থেকে আগারগাঁও অংশ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ইতোমধ্যে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সিংহভাগ প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এখন চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি।

মেট্রোরেল উদ্বোধন উপলক্ষে পুরো এলাকা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হচ্ছে। আশপাশের ভাসমান দোকান-পাট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ফুটপাতের দোকানগুলোও উচ্ছেদ করা হয়েছে। দিয়াবাড়ী থেকে আগারগাঁও রুটের দুই পাশের এলাকায় নিরাপত্তাব্যবস্থাও জোরদার করা হয়েছে।


বিজ্ঞাপন


সরেজমিনে ওই এলাকা ঘুরে এবং সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, মেট্রোরেল উদ্বোধনকে কেন্দ্র করে ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে ওই এলাকায় বাড়তি নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে আশপাশের আবাসিক হোটেলগুলোতে নতুন বোর্ডার প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা, এলাকার সব বৈধ অস্ত্রধারীর অস্ত্র থানায় জমা নেওয়াসহ সাত দফা নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

ডিএমপির নির্দেশনায় আরও আছে- উদ্বোধনী দিনে প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তায় আগারগাঁও থেকে দিয়াবাড়ী এলাকায় কোনো ভবন বা ফ্ল্যাটে ২৯ ডিসেম্বরের আগে নতুন ভাড়াটিয়া উঠতে পারবেন না। কোনো বাণিজ্যিক ভবনে ২৮ ডিসেম্বরে নতুন কোনো অফিস, দোকান, রেস্তোরাঁ খোলা যাবে না।

metro2


বিজ্ঞাপন


এছাড়া উদ্বোধনের দিন মেট্রোরেলসংলগ্ন কোনো ভবনের বেলকনি ও ছাদে কাপড় শুকাতে দেওয়া যাবে না এবং কেউ ছাদে দাঁড়াতে পারবেন না। ওইসব এলাকার ভবন বা ফ্ল্যাটে ওই দিন কোনো ছবি বা ফেস্টুন লাগানো যাবে না। আর মেট্রোরেলের দুই পাশের সব ব্যাংক বা এটিএম বুথ ২৮ ডিসেম্বর সকাল থেকে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান চলা পর্যন্ত বন্ধ রাখতে হবে।

সোমবার (২৬ ডিসেম্বর) সরেজমিনে দিয়াবাড়ি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, আশপাশের এলাকায় লোকজনের আনাগোনা কমে গেছে। এছাড়া কেউ কেউ বাসা থেকে গ্রামের বাড়ি চলে যাচ্ছেন। সৌন্দর্যবর্ধনের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে।

দিয়াবাড়ি এলাকায় থাকেন আব্দুর রহিম। তিনি ঢাকা মেইলকে বলেন, আমি ওই এলাকায় ভাসমান ব্যবসায়ী। কিন্তু মেট্টোরেল উদ্বোধন উপলক্ষে আশপাশের দোকান পাট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তাই গত কয়েক দিন থেকে দোকান বন্ধ। এজন্য আজ পরিবারের সবাইকে নিয়ে গ্রামে চলে যাচ্ছি। উদ্বোধনের পর আবার ঢাকায় আসব।

দিয়াবাড়ির মেট্টোরেলের আশপাশ এলাকা ঘুরে একই অবস্থা দেখা গেছে। দোকান-পাটগুলো ভেঙে দেওয়া হয়েছে। তবে কেউ কেউ খোলা আকাশের নিচে বসে ব্যবসা করতে দেখা গেছে।

রহিমা বেগম নামের এক নারী ঢাকা মেইলকে বলেন, চারদিন আগে আমাদের চায়ের দোকান উচ্ছেদ করা হয়েছে। কিন্তু চা বিক্রি করেই আমাদের সংসার চলে। তাই খোলা আকাশের নিচে বসেও চা বিক্রি করার চেষ্টা করছি। কিন্তু পুলিশ আসলে চলে যাই।

মেট্রোরেল এলাকায় সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্ন কর্মীদের পরিষ্কার-পরিচ্ছনের কাজ করতে দেখা গেছে। ময়লা-আর্বজনাগুলো একত্র করে পুড়িয়ে দিচ্ছেন তারা।

আব্দুর মতিন নামের এক পরিচ্ছন্ন কর্মী ঢাকা মেইলকে বলেন, মেট্রোরেল প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন। তাই অন্য সময়ের তুলনায় কাজের চাপ একটু বেশি। দিয়াবাড়ি এলাকায় ময়লা-আবর্জনা পরিস্কার করা হচ্ছে। 

metro3

আনুষ্ঠানিকভাবে মেট্রোরেল উদ্বোধন শেষে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর মেট্রোরেলে চড়ে উত্তরা থেকে আগারগাঁও ভ্রমণ করবেন সরকারপ্রধান। এজন্য এই পুরো এলাকাজুড়ে বিশেষ নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে।

শুরুতে মেট্রোরেল চলবে দিনে চার ঘণ্টা (সকাল ৮ থেকে দুপুর ১২টা)। উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত চলার সময় ট্রেনগুলো আপাতত মাঝপথে কোথাও থামবে না। ঢাকায় মেট্রোরেল নির্মাণ ও পরিচালনার দায়িত্বে থাকা ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল) এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

শুরুর দিকে মেট্রোরেল স্টেশনে যাত্রীদের উঠানামার জন্য ১০ মিনিট করে থেমে থাকবে ট্রেন। এর উদ্দেশ্য যাত্রীদের অভ্যস্ত করা। ডিএমটিসিএল কর্তৃপক্ষ ট্রেন চালিয়ে এতে যাত্রী উঠানামা, ট্রেনের দরজা খোলা ও বন্ধ করার পরীক্ষা চালিয়েছে। দেখা গেছে, টিকিট কেটে যাত্রীদের ট্রেনে উঠতে ও নামতে একটু সময় বেশি লাগছে। তাই আপাতত ১০ মিনিট করে অপেক্ষার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ১৫ দিন পর পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

কেআর/জেবি

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

টাইমলাইন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর