রোববার, ২৬ মে, ২০২৪, ঢাকা

গুলিস্তানে ‘হকিস্টিক মহড়া’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:২৪ পিএম

শেয়ার করুন:

গুলিস্তানে ‘হকিস্টিক মহড়া’
ছবি: ঢাকা মেইল

রাজধানীর নয়াপল্টনে পুলিশ-বিএনপির ‘রক্তক্ষয়ী’ সংঘর্ষের একদিন পরও পুরো পল্টন ও গুলিস্তান এলাকাজুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। সেই সঙ্গে পুরো এলাকায় বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) বিকালের দিকেও গুলিস্তানের জিরো পয়েন্ট এলাকায় কিছু নেতাকর্মীকে হকিস্টিক নিয়ে মহড়া দিতে দেখা গেছে। এ সময় তারা মিছিল নিয়ে পল্টনের দিকে যেতে থাকেন। একই সময় মিছিল দেখে ওই এলাকায় কিছুটা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। আশপাশের লোকজন দ্রুত রাস্তা থেকে সড়ে যায়। সেই সঙ্গে ওই সড়কে যান চলাচল তাৎক্ষণিক বন্ধও হয়ে যেতে দেখা যায়।


বিজ্ঞাপন


প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, হকিস্টিক নিয়ে মহড়া দেওয়ারা আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মী।

Processionএদিকে, সংঘর্ষের পর বৃহস্পতিবারও থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে রাজধানীর নয়াপল্টন এলাকায়ও। বিএনপির কার্যালয়ে পুলিশি অভিযানের পর থেকে আজ অবধি বন্ধ রয়েছে নয়াপল্টন সড়ক। সেই সঙ্গে রাস্তার দুই পাশ ব্যারিকেড দিয়ে আটকে রেখেছে পুলিশ। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন এই সড়কে চলাচলকারীরা।

অন্যদিকে, বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনের নাইটেঙ্গেল মোড় ঘুরে সেই স্থান থেকে নয়াপল্টনের মুখে ব্যারিকেড দিয়ে অসংখ্য পুলিশকে সতর্ক অবস্থানে থাকতে দেখা যায়। সেই সঙ্গে জরুরি প্রয়োজনে কেউ নয়াপল্টনের দিকে যেতে চাইলে তার আইডি কার্ড দেখাসহ জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। পাশাপাশি করা হচ্ছে তল্লাশি।

Clashএই অবস্থায় বিএনপির নয়াপল্টন কার্যালয়ে কোনো নেতাকর্মীকেও প্রবেশ করতে দিচ্ছে না পুলিশ। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমমপি) যুগ্ম কমিশনার (অপারেশন) বিপ্লব কুমার সরকার দুপুরে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, গতকাল নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বিপুল পরিমাণ বোমা পাওয়া যায়। এ জন্য এই মুহূর্তে কাউকে কার্যালয়ের আশপাশে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না।


বিজ্ঞাপন


পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, ক্রাইম সিনের পুরো এলাকা নিরাপত্তার খাতিরে ঘিরে রাখা হয়েছে। কবে-কখন জায়গাটি নিরাপদ ঘোষণা করা হবে, তা এখনই বলা যাচ্ছে না।

Clashউল্লেখ্য, বুধবারের সংঘর্ষের পর থেকে পুরো নয়াপল্টন এলাকায় অসংখ্য পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। বৃহস্পতিবারও বিএনপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পাশাপাশি দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামকেও কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের দিকে যেতে দেওয়া হয়নি। পরে তিনি অন্যখানে মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলেছেন।

Clashএদিকে, বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষের ঘটনায় এখন পর্যন্ত মতিঝিল ও পল্টন থানায় দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এরমধ্যে মতিঝিল থানার মামলায় ২৮ জনের নাম উল্লেখ ছাড়াও শতাধিক ব্যক্তিকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। এছাড়া পুলিশ বাদী হয়ে করা পল্টন থানার মামলায় মামলায় ৪৭৩ জনকে এজাহারনামীয় আসামি ছাড়াও ১৫০০-২০০০ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।

টিএই/আইএইচ

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

টাইমলাইন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর