সোমবার, ২২ এপ্রিল, ২০২৪, ঢাকা

ভ্রমণ

বিমানে পানির বোতল নেওয়া যায়?

আসাদুজ্জামান লিমন
প্রকাশিত: ১০ জানুয়ারি ২০২৪, ০১:২৮ পিএম

শেয়ার করুন:

water

বাস, ট্রেন কিংবা লঞ্চ ভ্রমণের চেয়ে আলাদা বিমান ভ্রমণ। আকাশপথে ভ্রমণে তাই রয়েছে বাড়তি নিয়ম-কানুন। যেগুলো অবশ্যই মেনে চলতে হয়। উড়ানের নিরাপত্তার স্বার্থেই এসব নিয়ম মানতে হয়। বিমানে কী কী বহন করতে পারবেন, কী কী পারবেন না তার সুনির্দিষ্ট নিয়ম রয়েছে। এসব অনেকেরই জানা নেই। 

আরও পড়ুন: বিমানের টিকিট অনলাইনে কাটতে যেসব নিয়ম মানবেন


বিজ্ঞাপন


ভ্রমণের সময় বেশিরভাগ মানুষ সঙ্গে পানির বোতল বহন করেন। দীর্ঘপথের ক্লান্তি দূর করতে কিংবা তেষ্টা মেটাতে পানির বিকল্প নেই। অনেকের মনেই প্রশ্ন বিমান ভ্রমণের সময় সঙ্গে পানির বোতল বহন করা যায়?

bottle3

বিমানে তরল পদার্থ বহনের নিয়ম

বিমানে তরল পদার্থ বহনের ক্ষেত্রে নীতিমালা রয়েছে। নিয়ম বলছে একজন যাত্রী সর্বোচ্চ ১০০ মিলিলিটার তরল পদার্থ বহন করতে পারবেন। তবে বিমানের ভেতরে পানির বোতল শূন্য থাকলে সঙ্গে নেওয়ার অনুমতি মেলে।


বিজ্ঞাপন


এছাড়াও যাত্রীর সঙ্গে শিশু থাকলে ২০০ মিলিলিটার পর্যন্ত তরল পদার্থ যেমন পানি, দুধ ও তরল শিশু খাদ্য বহন করা যায়।

bottle

বিমানে তরল পদার্থ কীভাবে বহন করবেন?

বিমানে দুই ধরনের লাগেজ বহন করা যায়। একটি চেক ইন লাগেজ। দ্বিতীয়টি হ্যান্ড লাগেজ। চেক ইন লাগেজে বেশি পরিমান লাগেজ বহন করা গেলেও হ্যান্ড লাগেজে ছোট আকারের ব্যাগ বহন করা যায়।   

জানুন বিমানের হ্যান্ড লাগেজে কী কী বহন করতে পারবেন। 
         
হ্যান্ড লাগেজে বিমানে তরল পদার্থ বহন করার বিষয়ে যেকোনো এয়ারলাইনের স্পষ্ট নিয়ম রয়েছে। 

এই নিয়মগুলো জলীয় পদার্থ পরিবহনের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে, আপনাকে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট জানতে হবে।

বোর্ডে লাইনারে ১০০ মিলিলিটারের বেশি নয় এমন পাত্রে তরল বহন করার অনুমতি দেওয়া হয়। মোট আয়তন ১ লিটারের বেশি হওয়া উচিত নয়। অর্থাৎ, তাত্ত্বিকভাবে, আপনি নিয়ম লঙ্ঘন না করে ১০০ মিলি ভলিউমসহ ১০ বোতল জলীয় পদার্থ বহন করতে পারেন।

যে পণ্যগুলোকে হ্যান্ড লাগেজে বহন করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল সেগুলি অবশ্যই উপযুক্ত উপায়ে প্যাক করতে হবে। যেমন- একটি শক্তভাবে বন্ধ পাত্রটিকে একটি জিপারসহ একটি স্বচ্ছ প্লাস্টিকের ব্যাগে রাখতে হবে। 

আপনি একটি সাধারণ প্যাকেজে পরিবহনের জন্য অনুমোদিত সমস্ত পাত্র রাখতে পারেন। কিন্তু ১০ টুকরার বেশি নয়। 

cpk

উদাহরণস্বরূপ, যদি আপনার পার্সে একটি পারফিউম পাওয়া যায়, যার বোতলটির পরিমাণ ১৫০ মিলি, আপনার যুক্তি যে অর্ধেকেরও কম আছে তা পরীক্ষকদের আপনাকে যেতে দিতে রাজি হবে না। বোতলটি ফেলে দিতে হবে, যদিও এতে ৭০ বা ৫০ মিলি পারফিউম অবশিষ্ট থাকে। আপনার হাতে যদি পানির বোতল থাকে, তাহলে আপনাকে পরিদর্শনের সময় তা বিনে ফেলে দিতে হবে, অথবা ঘটনাস্থলেই পান/ব্যবহার করতে হবে।

একটি ব্যতিক্রম শুধুমাত্র শিশুদের সঙ্গে যাত্রীদের জন্য প্রদান করা হয়। তাদের সেলুনে শিশুর খাবার এবং পানীয় আনতে দেওয়া হয়। আইন এই ধারণাগুলোর মধ্যে কী অন্তর্ভুক্ত রয়েছে তা নিয়ন্ত্রণ করে না, তাই, শিশুদের পিতামাতারা তাদের সঙ্গে অবাধে পানীয়, কুকি এবং চকোলেট বহন করে।

অনুমোদিত পরিমাণ বিমানবন্দর কর্মীরা তাদের বিবেচনার ভিত্তিতে নির্ধারিত হয়। এটা স্পষ্ট যে আপনাকে দুটি দেড় লিটারের বোতল নেওয়ার অনুমতি নাও দিতে পারে।

হ্যান্ড ব্যাগে তরল পদার্থ বহন নিষিদ্ধ

হ্যান্ড লাগেজে পণ্য বহনে কিছু বিধিনিষেধ আছে। এতে কোনোভাবেই পানির বোতল, ড্রিংকস, শ্যাম্পু, বডি স্প্রে, পারফিউম বা অন্য কোনো তরল রাখা যাবে না। সে ক্ষেত্রে বিমানে ওঠার আগেই নিরাপত্তা কর্মীরা এগুলো রেখে দেবে। এছাড়া ধাতব অনেক কিছুই বহন করা যাবে না। স্ক্রু ড্রাইভার, স্লাইড রেঞ্জ, ম্যাচ, ইলেকট্রনিক ডিভাইস-এসব তো নয়ই। বিদেশ থেকে ফেরার সময় এ জাতীয় কোনো পণ্য আনতে চাইলে তা অন্য লাগেজে রাখতে হবে।

এজেড

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর