সাকার মাছ নিষিদ্ধ করে গেজেট

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৫ জানুয়ারি ২০২৩, ০৬:৩০ পিএম
সাকার মাছ নিষিদ্ধ করে গেজেট

দেশের প্রায় সব ধরনের জলাশয়ে ছড়িয়ে পড়া অ্যাকুরিয়ামের শোভাবর্ধক ও আবর্জনাভুক ‘সাকার’ মাছ নিষিদ্ধ করেছে সরকার। ইতোমধ্যেই মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে গেজেট প্রকাশের মাধ্যমে আইনগতভাবে এই মাছটি আমদানি, উৎপাদন ও বিপণনে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মৃণাল কান্তি দে গত ১১ জানুয়ারি এই প্রজ্ঞাপন জারি করেন বলে জানা গেছে।

এর আগে ২৫ সেপ্টেম্বর সাকার মাছ নিষিদ্ধ করতে প্রটেকশন অ্যান্ড কনজারভেশন অব ফিশ অ্যাক্ট, ১৯৫০–এর ১৮ নম্বর ধারা সংশোধন প্রস্তাব প্রজ্ঞাপন আকারে জারি করে মন্ত্রণালয়। এ বিষয়ে কারও কোনো আপত্তি বা পরামর্শ থাকলে লিখিতভাবে অনধিক দুই মাসের মধ্যে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মৃণাল কান্তি দে’কে জানানোর জন্য বলা হয়।

>> আরও পড়ুন: সাকার ফিশ ছড়িয়ে পড়েছে দেশের সব নদীতে

মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ‘যেহেতু, উক্ত প্রাক্‌–প্রকাশনায় উল্লিখিত ২ (দুই) মাস সময় ইতোমধ্যে অতিক্রান্ত হইয়াছে এবং প্রস্তাবিত সংশোধনের ওপর প্রাপ্ত মতামতের ভিত্তিতে সরকার উক্ত রুলসের অধিকতর সংশোধনের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করিয়াছে।’

Sakar Fishপ্রজ্ঞাপনে আইনের ১৮ নম্বর ধারার ২ নম্বর উপধারায় বলা হয়, সাকার মাছ কোনো ব্যক্তি আমদানি, প্রজনন, চাষ, পরিবহন, বিক্রি, গ্রহণ বা প্রদান, বাজারজাতকরণ, সংরক্ষণ, প্রকাশ ও অধিকারী হতে পারবেন না।

যে কারণে নিষিদ্ধ সাকার

সাকার মাছের ইংরেজি নাম Suckermouth Catfish বা Common Pleco।  জানা গেছে, সাকার মাছ দেশের জন্য ক্ষতিকর বলে দীর্ঘদিন ধরে প্রচার চালিয়ে আসছে মৎস্য অধিদফতর। এ বিষয়ে এক প্রচারপত্রে বলা হয়েছে, সাকার মাছ আশির দশকে ব্রাজিল থেকে অননুমোদিতভাবে বাহারি মাছ হিসেবে প্রথম বাংলাদেশে নিয়ে আসা হয়। বর্তমানে সাকার মাছ নদী–নালা, খাল–বিল ও চাষের পুকুরে চাষ করা মাছের সঙ্গে ব্যাপকভাবে ধরা পড়ছে। যা জীববৈচিত্র্য তথা দেশীয় প্রজাতির মাছের অস্তিত্বের জন্য হুমকিস্বরূপ।

সাকার মাছের ক্ষতিকর প্রভাব তুলে ধরে প্রচারপত্রে আরও বলা হয়েছে, যে কোনো জলজ পরিবেশে বেঁচে থাকতে পারে এবং দ্রুত বংশবৃদ্ধির কারণে দেশীয় প্রজাতির মাছের সঙ্গে খাদ্য ও বাসস্থান নিয়ে প্রতিযোগিতা করে এই মাছ। দেশীয় প্রজাতির মাছের ডিম ও রেণু খেয়ে বংশবিস্তারে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে, সর্বোপরি জলজ জীববৈচিত্র্য নষ্ট করে সাকার। দেশীয় প্রজাতির ছোট মাছসহ জলজ পোকামাকড়, শ্যাওলা, ছোট শামুকজাতীয় প্রাণী খেয়ে সাকার মাছ পরিবেশের সহনশীল খাদ্যশৃঙ্খল নষ্ট করে। এছাড়াও জলাশয় পাড়ের ক্ষেত্রবিশেষ ৫ ফুট পর্যন্ত গর্ত করে পাড়ের ক্ষতি করে এবং জলাশয়ের উৎপাদন ও উৎপাদনশীলতা কমায়।

>> আরও পড়ুন: আফতাবনগরের বদ্ধ জলাশয়ে 'সাকার ফিশ' এলো কীভাবে?

কীভাবে সাকার মাছ নিয়ন্ত্রণ হবে তাও বলা আছে প্রচারপত্রে। এতে বলা হয়েছে, উন্মুক্ত বা বদ্ধ জলাশয়ে পাওয়া গেলে তা বিনষ্ট করতে হবে। সেচের মাধ্যমে পুরোপুরি শুকিয়ে নষ্ট করতে হবে। হ্যাচারিতে প্রজনন বা লালনপালন করা যাবে না। পাশাপাশি অ্যাকুরিয়ামে শোভা বর্ধনকারী মাছ হিসেবে পালন বন্ধ করতে হবে। সাকার যেন নতুন করে উন্মুক্ত বা বদ্ধ জলাশয়ে প্রবেশ করতে না পারে, সে বিষয়ে সচেষ্ট থাকতে হবে।

Sakar Fishযদিও ২০০৮ সালে পিরানহা মাছ এবং ২০১৪ সালে আফ্রিকান মাগুর নিষিদ্ধ করলেও এখনো এসব মাছ বিভিন্ন সময় বাজারে বিক্রি হতে দেখা যায়। পিরানহা মাছ রূপচাঁদা নামে এবং ছোট আকারের আফ্রিকান মাগুর বিক্রি করা হচ্ছে দেশি মাগুর বলে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে বিভিন্ন সময় বিপুল পরিমাণ আফ্রিকান মাগুর এবং পিরানহা মাছ উদ্ধার করা হয়েছে। শাস্তির মুখোমুখি হতে হয়েছে সংশ্লিষ্টদের।

>> আরও পড়ুন: সাকার ফিশের কবলে প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজননক্ষেত্র হালদা

প্রটেকশন অ্যান্ড কনজারভেশন অব ফিশ রুলস, ১৯৮৫ এর কয়েকটি ধারা সংশোধন করে আফ্রিকান মাগুরের ওপর এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। বিদেশ থেকে আফ্রিকান মাগুর ও পিরানহা, মাছের রেণু ও পোনা আমদানি করলে জেল জরিমানার বিধান রেখে মৎস্য সংগনিরোধ আইন-২০১৭ এর খসড়ায় নীতিগত অনুমোদন দেয় মন্ত্রিপরিষদ। এই আইন অমান্য করলে দুই বছরের জেল ও ৫ লাখ টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

মৎস্য সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, বাংলাদেশে প্রাপ্ত সাকার ফিশ ১৬ থেকে ১৮ ইঞ্চি পর্যন্ত লম্বা হয়। এটি পানি ছাড়াই প্রায় ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত বাঁচতে পারে। মৎস্য আইন, ২০১১ অনুযায়ী বাংলাদেশে দেশীয় প্রজাতির মাছের ক্ষতি করে এমন যে কোনো বিদেশি মাছ আমদানি ও চাষ দণ্ডনীয় অপরাধ।

>> আরও পড়ুন: ‘পানিই আমাদের জন্য মরণ হয়ে দাঁড়িয়েছে’

সম্প্রতি সময়গুলোতে বুড়িগঙ্গাসহ দেশের অনেক স্থানেই হরহামেশাই মিলছে সাকার। জেলেরা জানিয়েছেন, বুড়িগঙ্গাসহ দেশের কিছু নদ-নদীতে জাল ফেললে দেশীয় মাছের চেয়ে সাকার মাছই বেশি উঠছে। এসব মাছ পেলে মাটিতে পুঁতে ফেলা হয়। অন্যথায় এসব মাছ আবার অন্য মাছের ডিম খেয়ে ফেলে। দেশীয় মাছ ধ্বংস করে।

এ বিষয়ে মৎস্য অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা ঢাকা মেইলকে বলেন, যেহেতু এখন গেজেট হয়েছে, এটি নিষিদ্ধ। এখন প্রত্যাশা এটি পর্যায়ক্রমে শুধু কমবেই।

ডব্লিউএইচ/আইএইচ