সোমবার, ১৭ জুন, ২০২৪, ঢাকা

যেসব দেশে কম খরচে উচ্চশিক্ষার সুযোগ রয়েছে

অভিবাসন ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩ মার্চ ২০২৩, ০৪:৫৬ পিএম

শেয়ার করুন:

যেসব দেশে কম খরচে উচ্চশিক্ষার সুযোগ রয়েছে

উচ্চশিক্ষা গ্রহণে বিদেশে যাওয়ার ইচ্ছে রয়েছে অনেক শিক্ষার্থীর। কিন্তু এই বিষয়ে পর্যাপ্ত জ্ঞান ও সঠিক দিকনির্দেশনার অভাবে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছতে পারেন না তারা। বিশেষ করে এক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা হয়ে দাঁড়ায় আর্থিক বিষয়টি। তাই বিদেশে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে টিউশন ফি, জীবনযাত্রার ব্যয় এবং চাকরির বিষয়টি বিবেচনায় রাখা জরুরি। তবে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে শিক্ষার্থীরা সবচেয়ে বেশি যায় স্নাতকোত্তর পর্যায়ে। এই পর্যায়ে খরচ স্নাতকের তুলনায় কম। কিন্তু এশিয়া ও ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশে স্নাতক পর্যায়েও কম খরচে পড়ার সুযোগ দেয়। এছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন ধরনের স্কলারশিপের সুযোগ। পাশাপাশি বিদেশি শিক্ষার্থীদের পার্ট-টাইম কাজের সুযোগও দিয়ে থাকে। চলুন জেনে নিই বিশ্বের যেসব দেশে কম খরচে উচ্চশিক্ষার সুযোগ রয়েছে।

আরও পড়ুন: এইচএসসির পর বিদেশে উচ্চশিক্ষা


বিজ্ঞাপন


higher-studyজার্মানি

বর্তমানে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে শিক্ষার্থীদের পছন্দের তালিকার শীর্ষে রয়েছে জার্মানি। এর অন্যতম প্রধান কারণ জার্মানির অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো টিউশন ফি নেই। জার্মানিতে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে একজন বিদেশি শিক্ষার্থীকে সাধারণত সেমিস্টার প্রতি খরচ করতে হয় ৩১৫ থেকে ৫৩০ ডলার। আর প্রতি মাসে থাকা-খাওয়ার জন্য খরচ হবে প্রায় ৯৫০ ডলার। তবে স্নাতকের পর ১৮ মাসের স্নাতকোত্তরে ওয়ার্ক ভিসা দিয়ে থাকে দেশটি।

আরও পড়ুন: আইইএলটিএস ছাড়াই ফ্রান্সে উচ্চশিক্ষার সুযোগ

ফ্রান্স


বিজ্ঞাপন


উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের আগ্রহের দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম ফ্রান্স। উন্নত জীবনযাত্রা, শিক্ষার মান ও পরিবেশ থাকায় ইউরোপের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী এই দেশে প্রতিবছর প্রচুর শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষা গ্রহণে পাড়ি জমায়। ফ্রান্সের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত এবং বাইরের দেশগুলোর শিক্ষার্থীদের জন্য টিউশন ফি ভিন্ন। ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশের শিক্ষার্থীদের স্নাতক পর্যায়ে বছরে খরচ করতে হবে ৪০০ ডলার। আর বাইরের দেশগুলোর শিক্ষার্থীদের স্নাতকে পর্যায়ে বছরে খরচ করতে হয় ৩ হাজার ডলার। আর স্নাতকোত্তর পর্যায়ে খরচ করতে হয় প্রায় ৪ হাজার ডলার। ফ্রান্সে প্রতি মাসে থাকা-খাওয়ার জন্য খরচ করতে হয় প্রায় ৯৫০ ডলার। তবে ছোট শহর বসবাস করলে জীবনযাত্রার ব্যয় কম হবে।

higher-studyপোল্যান্ড

সম্প্রতি বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের মধ্যে পোল্যান্ডে যাওয়ার প্রবণতা অনেক বেড়েছে। এক্ষেত্রে কম টিউশন ফি ও ভিসাপ্রাপ্তির সহজলভ্যতা অন্যতম কারণ। দেশটিতে ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত নয় এমন দেশের শিক্ষার্থীদের বছরে খরচ করতে হয় ২ হাজার ডলার থেকে ৬ হাজার ২০০ ডলার পর্যন্ত। বিশ্ববিদ্যালয়ভেদে টিউশন ফি’র তারতম্য হয়ে থাকে। দেশটি খাওয়া-দাওয়ার জন্য মাসে খরচ হয় ৪০০ ডলার থেকে ৬২৫ ডলার। স্নাতকের পর ৯ মাস পর্যন্ত ওয়ার্ক ভিসা দিয়ে থাকে পারেন শিক্ষার্থীরা।

higher-studyনরওয়ে

নরওয়ের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সব শিক্ষার্থীর জন্য বিনামূল্যে পড়ার সুযোগ ছিল। কিন্তু বর্তমানে টিউশন ফি নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির সরকার। ২০২৩ সাল থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং সুইজারল্যান্ড ছাড়া আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য টিউশন ফি দিতে হবে। দেশটিতে বসবাসের জন্য মাসে খরচ হতে পারে ৭৩৫ থেকে ৯৫০ ডলার। দেশটিতে পড়ালেখার পাশাপাশি সপ্তাহে ২০ ঘণ্টা পর্যন্ত কাজের সুযোগ রয়েছে। স্নাতক শেষে এক বছরে ওয়ার্ক ভিসা পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন: IELTS: কোন দেশে কত স্কোর লাগে?

অস্ট্রিয়া

অস্ট্রিয়ায় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর টিউশন ফি একদম নেই। কিন্তু ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাহিরের দেশগুলোর শিক্ষার্থীদের জন্য পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে প্রতি সেমিস্টারে ২০ ইউরো (প্রায় ১ হাজার ৯২৭ টাকা) ছাড়াও টিউশন ফি বাবদ গড়ে ৭২৬ ইউরো (প্রায় ৭০ হাজার টাকা) দিতে হয়। তবে ভিয়েনা বিশ্ববিদ্যালয়, ভিয়েনা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ইনসব্রুক বিশ্ববিদ্যালয়, জোহানেস কেপলার ইউনিভার্সিটি লিঞ্জ, গ্রাজ বিশ্ববিদ্যালয় ও লিওবেন বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশের শিক্ষার্থীদের জন্য টিউশন ফি নেই।

higher-studyমেক্সিকো

মেক্সিকোর সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বিদেশি শিক্ষার্থীদের বছরে খরচ করতে থেকে ৪০০ থেকে ৮০০ ডলার। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ক্ষেত্রে খরচ হয় ১ হাজার ৬০০ থেকে ১৬ হাজার ডলার পর্যন্ত। মেক্সিকোতে থাকা-খাওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের মাসে প্রায় ১ হাজার ডলার খরচ করতে হয়।

আরও পড়ুন: বিদেশে উচ্চশিক্ষার জন্য কোন দেশ ভালো?

আর্জেন্টিনা

আর্জেন্টিনায় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ালেখার ক্ষেত্রে কোনো খরচ নেই। তবে অধিকাংশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে টিউশন ফি ৫ হাজার থেকে ১৫ হাজার ডলার। দেশটিতে থাকা-খাওয়ার জন্য মাসে খরচ করতে হয় প্রায় ৩৫০ ডলার।

higher-studyভারত

উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে আদর্শ হতে পারে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত। কারণ কম টিউশন ফি এর পাশাপাশি জীবনযাত্রা ব্যয়ও অনেক কম। তবে বিশ্ববিদ্যালয় এবং কোর্সের ওপর টিউশন ফি নির্ভর করে। তবে বছরে গড়ে খরচ হয় ১ হাজার ১০০ থেকে ৫ হাজার ৪০০ ডলার। বসবাসের জন্য মাসে খরচ করতে হয় ২৭০ থেকে ৪০০ ডলার। এছাড়া সংস্কৃতিগত দিক থেকেও বাংলাদেশের সঙ্গে মিল রয়েছে।

আরও পড়ুন: কম খরচে ভারতে উচ্চশিক্ষা

তাইওয়ান

তাইওয়ানের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে টিউশন ফি বছরে ৬৭৫ থেকে ১২ হাজার ৭০০ ইউরো। থাকা-খাওয়ার জন্য প্রতি মাসে খরচ করতে হয় প্রায় ৬৮০ থেকে ৮৮০ ইউরো।

হাঙ্গেরি

হাঙ্গেরির পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে টিউশন ফি অনেক কম। দেশটিতে বিদেশি শিক্ষার্থীদের বছরে টিউশন ফি দিতে হয় ১ হাজার ২০০ থেকে ৫ হাজার ইউরো। এ ছাড়া থাকা-খাওয়ার জন্য খরচ করতে হয় ৩৭৫ থেকে ৭০০ ইউরো।

এমএইচটি

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর