সোমবার, ২২ এপ্রিল, ২০২৪, ঢাকা

কোন রক্তের গ্রুপের ব্যক্তিদের হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি? 

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:০৫ পিএম

শেয়ার করুন:

কোন রক্তের গ্রুপের ব্যক্তিদের হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি? 

রক্ত দেহের এমন একটি উপাদান যা শরীর সম্পর্কে অনেক কিছুই বলে। A, B, AB এবং 0 ব্লাড গ্রুপের রক্ত কণিকার পৃষ্ঠের সঙ্গে নির্দিষ্ট অ্যান্টিবডি যুক্ত থাকে। A এবং B রক্ত কোষের পৃষ্ঠে বিভিন্ন ধরনের অ্যান্টিবডি থাকে। AB রক্তের গ্রুপে উভয় ধরনের অ্যান্টিবডি পাওয়া যায়। আর O রক্তের গ্রুপের পৃষ্ঠে কোনো অ্যান্টিবডি নেই।

বিশেষজ্ঞদের মতে, অ্যান্টিবডিগুলো রক্ত ও কোষের পৃষ্ঠে আঠালো পদার্থ সৃষ্টি করে যা শরীরকে বাইরে থেকে ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া এবং পরজীবী থেকে রক্ষা করে। জেনেটিসিস্ট এবং লিড প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট সায়েন্টিস্ট জ্যাম লিমের মতে, ও ব্লাড গ্রুপ ব্যতীত ব্লাড গ্রুপ অর্থাৎ A, B, AB ব্লাড গ্রুপের হৃদরোগের ঝুঁকি বেশি। 

blood1

এর পেছনে কারণ কী? আসল কারণ জানা না গেলেও অনেকে রক্ত জমাট বাঁধা বা থ্রম্বোসিসকে কারণ হিসেবে মনে করেন।

আরও পড়ুন-
 
 

A, B বা AB টাইপের লোহিত রক্তকণিকা এবং যে পথ দিয়ে এটি প্রবাহিত হয় সেগুলো আঠালো হয়। ফলে এই পথে রক্ত প্রবাহ করা কঠিন হয়। গবেষকদের মতে, AB ব্লাড গ্রুপের মানুষদের কার্ডিওভাসকুলার রোগের ঝুঁকি বেশি থাকে। কারণ সবচেয়ে বেশি অ্যান্টিবডি এই গ্রুপের রক্তে থাকে। তার তুলনায় A এবং B রক্তের গ্রুপে কম অ্যান্টিবডি রয়েছে। 

blood2

একটি সমীক্ষায় দেখা যায়, A ও B রক্তের গ্রুপের মানুষের শিরায় রক্ত জমাট বাঁধার সম্ভাবনা ৫১ শতাংশ। তাদের ফুসফুসে রক্ত জমাট বাঁধার সম্ভাবনা ৪৭ শতাংশ। মেমোরিয়াল কেয়ারের কার্ডিওলজিস্ট হোয়াং পি নুগুয়েন বলেন, টাইপ A ব্লাড গ্রুপে হৃদরোগের ঝুঁকি ৬ শতাংশ, B টাইপ ১৫ শতাংশ এবং AB-তে ২৩ শতাংশ।

আরও পড়ুন-
 
 

বিশেষজ্ঞদের মতে, নন-টাইপ ও রক্তের গ্রুপ এবং হৃদরোগের উচ্চ ঝুঁকির মধ্যে সম্পর্কের অনেক প্রমাণ রয়েছে। রক্তে ভন উইলেব্র্যান্ড ফ্যাক্টরের মাত্রা, কোলেস্টেরলের মাত্রা এবং আরও রক্ত জমাট বাঁধার সম্ভাবনা এটি নির্দেশ করে। O রক্তের গ্রুপের মানুষের রক্তে ভন উইলেব্র্যান্ড ফ্যাক্টরের মাত্রা কিছুটা কম থাকে।

blood3

চিকিৎসকদের মতে, যেসব রোগ যা রক্তকে ঘন করে, অর্থাৎ ডিহাইড্রেশন, ওষুধ বা অটো-ইমিউন রোগগুলোও হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়াতে পারে। স্থূলতা, জেনেটিক্স, ডায়েট, ভিটামিনের ঘাটতি বা ব্যায়ামের মতো বিষয়গুলো হৃদরোগের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত। 

তথ্যসূত্র: পেন মেডিসিন, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ 

এনএম

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর