রোববার, ২১ এপ্রিল, ২০২৪, ঢাকা

চ্যাম্পিয়নস লিগের ‘ডন’ আনচেলত্তি 

সালমান ইসলাম
প্রকাশিত: ১৮ এপ্রিল ২০২৩, ০৭:৩৬ পিএম

শেয়ার করুন:

চ্যাম্পিয়নস লিগের ‘ডন’ আনচেলত্তি 

সর্বকালের সেরা ফুটবল ম্যানেজারদের তালিকা করা হলে সেখানে অবশ্য নিঃসন্দেহে ওপরের দিকে নামটা থাকবে কার্লো আনচেলত্তির। কারন ফুটবল বিশেষজ্ঞের মতে, ইতালির রেজ্জিওলোতে জন্ম নেয়া এই ফুটবলার তার ব্যাক্তিগত ফুটবল ক্যারিয়ারের থেকে, বিশ্বের সেরাদের মাঝে স্থান বা জনপ্রিয় হয়েছেন তার ম্যানেজার হিসেবে অনবদ্য ক্যারিয়ার দিয়ে। চ্যাম্পিয়নস লিগে কোচ হিসেবে সর্বোচ্চ চার বার ট্রফি জয়ের রেকর্ড এখন তার দখলে। ২০০৩ ও ২০০৭ সালে মিলানের হয়ে শিরোপা জিতেছেন তিনি। এরপর রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে ২০১৪ ও ২০২২ সালের ট্রফি ঘরে তুলেছেন তারা হাত দিয়ে। আবারও এই সফল কোচের হাত দিয়ে আরেকবার শিরোপার স্বপ্ন বুনছেন বেনজেমা-ভিনিসিউস জুনিয়ররা।   

আর এ জন্য ৬৩ বছর বয়সী এই ইতালিয়ান কোচকে ভক্তরা মজা করে ‘ডন কার্লো’ নামে ডাকেন। আদুরে নামের সঙ্গে সফলতা বেশ সমার্থক বটে, অন্তত তার নামের পাশে লেখা পরিসংখ্যান তাই বলে।    


বিজ্ঞাপন


ইতালিয়ান এই ফুটবলার প্রথম ১৯৯৫ সালে রেজ্জিনা’র প্রধান কোচ হিসেবে দায়িত্ব নেন। এরপর পারমা, জুভেন্টাস, এসি মিলান, চেলসি, প্যারিস সেইন্ট-জার্মেইন(পিএসজি), বায়ার্ন মিউনিখ ও নাপোলি’র মতো ইউরোপের শীর্ষস্থানীয় ক্লাবগুলোতে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। আর এ সময় ক্লাবের হয়ে তিনবার উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা সহ বিভিন্ন ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক শিরোপা জয়ে ভূমিকা রাখেন এই ৬৩ বছর বয়সী ইতালিয়ান কোচ। 

তবে স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদের ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পরই আনচেলত্তির ক্যারিয়ারের সেরা অধ্যায় রচিত হয়। ২০১৩ সালে রিয়াল মাদ্রিদের প্রধান কোচ হিসেবে দায়িত্ব পান তিনি। আর তার অধীনে রিয়ালের ঘরে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগে ১০ম শিরোপা আসে স্প্যানিশ দলটির। 

এরপর তার অধীনে মাদ্রিদ কোপা দেল রে, উয়েফা সুপার কাপ, ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ সহ আরও বেশ কিছু শিরোপা জয় করে। ফলে তার অধীনে রিয়ালের জয়জয়কার ছড়িয়ে পড়ে সারা ফুটবল বিশ্বে। এছাড়া ২০২২-২৩ মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করা ৮টি দলের ভিতরে ৫টিতে ক্যারিয়ারের কোনো না কোনো সময় কোচের দায়িত্ব পালন করেছেন আনচেলত্তি। এ থেকেই বোঝা যায়, বিশ্বমানের দল নির্মাণ ও পরিচালনার ক্ষেত্রে এই ইতালিয়’র জুড়ি মেলা ভার। 


বিজ্ঞাপন


তা অবশ্য মাঠে কথা বলে দ্বিতীয় মেয়াদে রিয়ালে দায়িত্ব নেবার পর যেভাবে ছুটছেন। রিয়াল শিবিরে থেকে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর এবং সার্জিও রামোসের মতো তারকা চলে যাওয়া কিছুটা হলে ও রিয়াল ভক্তদের চিন্তার ছাপ রেখেছিল। তবে সব ছাপিয়ে ঘুরে দাঁড়িয়ে ২০২২ মৌসুমে আনচেলত্তির হাত ধরেই ১৪ তম শিরোপা ঘরে তুলে লস ব্লাঙ্কোসরা। অপরদিকে চলতি আসরে চ্যাম্পিয়নস লিগে রীতিমতো ইতিহাস গড়ে নিজের সাফল্যের ধারাকে আরও এগিয়ে নেয়ার সুযোগ এসেছে এবারে আনচেলত্তির সামনে।

ইতিমধ্যে দলটি চলতি উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে রয়েছে। যেখানে প্রথম লিগে ৩-০ তে এগিয়ে আছে স্প্যানিশ জায়েন্টরা। আর নিশ্চিতভাবেই বলা যায়, রিয়াল মাদ্রিদের ১৫তম ইউরোপিয়ান শিরোপা জয়ই ডন কার্লোর লক্ষ্য। সফল ফুটবলার হিসেবে যাত্রা শুরু করার পর ম্যানেজার হিসেবে আনচেলত্তির ব্যাপক সফলতা, সকল ক্রীড়ামোদীর সামনে একটি চিত্রই উপস্থাপন করে; আর তা হচ্ছে এই ১২০ গজের সবকিছুই পুরোপুরি তার নিখুঁত ও সুস্পষ্ট জ্ঞান রয়েছে। 

তাই ইউরোপে ও ঘরোয়াভাবে তার দলগুলোর অসামান্য সফলতা আর প্রত্যেক দলের জন্য ভিন্ন ভিন্ন কৌশল গ্রহণের মাধ্যমে বিশ্বের সেরা ক্লাবগুলো পরিচালনা করার দক্ষতার মধ্য দিয়ে ক্লাব ফুটবলের ইতিহাসে অমোচনীয় সাফল্যগাথা তৈরি করেছেন আনচেলত্তি।

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর