রাতে আর্জেন্টিনার ঐতিহাসিক ম্যাচটি দেখবেন যেভাবে

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৩ মার্চ ২০২৩, ১০:৩২ পিএম
রাতে আর্জেন্টিনার ঐতিহাসিক ম্যাচটি দেখবেন যেভাবে

কাতার বিশ্বকাপের পর্দা নেমেছে তিন মাস হলো। বিশ্বকাপের পর আবারো মাঠে ফিরছে আন্তর্জাতিক ফুটবলের লড়াই। একদিকে প্রীতি ম্যাচ, অন্যদিকে ২০২৪ সালের ইউরো কাপের বাছাই পর্বের দ্বৈরথ। এবার আরও একবার দেশের জার্সিতে মাঠে নামার অপেক্ষায় লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা সহ আরো কয়েকটি দেশ। সেহরির পরই শুরু হবে পানামার বিপক্ষে তিন তারকা জার্সি পরে মাঠে নামবে আলবিসেলেস্তেরা। আর আর্জেন্টিনার ঐতিহাসিক ম্যাচটি ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে দক্ষিণ আমেরিকান একটি ওটিটি প্ল্যাটফর্ম।

এদিকে দুঃসংবাদ থাকছে আর্জেন্টাইন ভক্তদের জন্য। কারণ লিওনেল মেসি-ডি মারিয়ার এই ম্যাচটি সরাসরি দেখা যাবে না দক্ষিণ এশিয়ার কোনো টিভি চ্যানেলে। ম্যাচটি সরাসরি সম্প্রচার করবে দক্ষিণ আমেরিকান একটি ওটিটি প্ল্যাটফর্ম। আর্জেন্টিনার বিভিন্ন গণমাধ্যমের জানায়, এই ওটিটি প্ল্যাটফর্মের 'ফ্যানাটিজ' নামের অ্যাপটি পাওয়া যাবে গুগল প্লে স্টোরে। 

আরও পড়ুন-সেহরির পরই শুরু হবে আর্জেন্টিনার ঐতিহাসিক ম্যাচ

বাংলাদেশ সময় ২৪ মার্চ (আগামীকাল) ভোর ৫.৩০ মিনিটে পানামার মুখোমুখি হবে আর্জেন্টিনা। অপরদিকে পানামার বিপক্ষে লিওনেল মেসির সামনে একাধিক রেকর্ড গড়ার হাতছানি। আর একটি গোল পেয়ে গেলেই ৮০০ গোলের মাইলফলক ছুঁয়ে ফেলবেন লা পুলগা। 

আরও পড়ুন-এমন রেকর্ড গড়া জয় এই প্রথম

এদিকে আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েন্স এইরেসের ৮৩ হাজার দর্শক ধারণ ক্ষমতার মুনুমেন্টাল স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ঐতিহাসিক এই ম্যাচটি। এই ম্যাচটি আর্জেন্টিনার ফুটবল ইতিহাসে অনন্য এক কীর্তি গড়েছে। 

যেখানে ১৫ লাখের বেশি দর্শক টিকিটের জন্য আবেদন করেছেন। শুধু তাই নয় ১ লাখ ৩১ হাজারের বেশি গণমাধ্যম কর্মী এই ম্যাচের অ্যাক্রিডিটেশন কার্ডের জন্য আবেদন করেছেন। আর্জেন্টিনার ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি ক্লাদিও তাপিয়া জানিয়েছেন গণমাধ্যমের ইতিহাসে সর্বোচ্চ সংখ্যক আবেদন পড়েছে এই ম্যাচের জন্য।

অন্যদিকে শুধু পানামাই না, আন্তর্জাতিক এ বিরতিতে আরও একটি ম্যাচ খেলবে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। আলবিসেলেস্তেদের দ্বিতীয় ম্যাচের প্রতিপক্ষ কুরাসাও। দ্বিতীয় প্রীতি ম্যাচে আর্জেন্টিনা মাঠে নামবে ২৮ মার্চ ভোর ৩টায়। এ ম্যাচটিও অনুষ্ঠিত হবে আলবিসেলেস্তেদের মাঠে।

প্রীতি ম্যাচের জন্য আর্জেন্টিনার দল

গোলরক্ষক: এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, জিরোনিমো রুলি ও ফ্রাঙ্কো আরমানি।

ডিফেন্ডার: নাহুয়েল মলিনা, গঞ্জালো মনটিয়েল, ক্রিস্টিয়ান রোমেরো, জার্মান পেজেলা, নিকোলাস ওটামেন্ডি, লিসান্দ্রো মার্টিনেজ, মার্কোস অ্যাকুইনা, নিকোলাস তাগলিয়াফিকো, জুয়ান ফয়েথ ও লাউতারো ব্লাঙ্কো।

মিডফিল্ডার: রদ্রিগো ডি পল, লিয়েন্দ্রো পারেদেস, অ্যালেক্সিস ম্যাক-অ্যালিস্টার, গুইদো রদ্রিগেজ, আলেজান্দ্রো গোমেজ, এনজো ফার্নান্দেজ, অ্যাক্সিকুয়েল প্যালাসিয়াস, থিয়াগো আলমাদা, ম্যাক্সিমো প্যারোন, ফাকুন্দো বুনানোত্তে, জিওবানি লো সেলসো, এমিলিয়ানো বুয়েন্দিয়া ও ভ্যালেন্টিন কার্বোনি।

ফরোয়ার্ড: লিওনেল মেসি, ডি মারিয়া, লাউতারো মার্টিনেজ, জুয়ান আলভারেজ, পাউলো দিবালা, আনহেল কোরেয়া, আলেসান্দ্রো গার্নাচো ও নিকোলাস গঞ্জালেস।