মঙ্গলবার, ২৮ মে, ২০২৪, ঢাকা

ঢাবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে ফলাফলে ইচ্ছাকৃত ধস নামানোর অভিযোগ

এম এইচ ইমরান, ঢাবি
প্রকাশিত: ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ০৩:১২ পিএম

শেয়ার করুন:

ঢাবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে ফলাফলে ইচ্ছাকৃত ধস নামানোর অভিযোগ
অভিযুক্ত শিক্ষক অধ্যাপক ড. নাদির জুনাইদ। ছবি: সংগৃহীত

বিভাগীয় শিক্ষকের ব্যক্তিগত আক্রোশের জেরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের পুরো একটি ব্যাচের ফলাফলে ভয়াবহ ধস নামিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে। ২০২২ সালের স্নাতকোত্তর শ্রেণির চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশের পরপরই এমন অভিযোগ করেছেন বিভাগের ১২তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মবহির্ভূত হলেও ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার আগে এ নিয়ে ওই শিক্ষক অন্য ব্যাচের কাছে মন্তব্য করেছেন বলেও অভিযোগ তোলা হয়। পাশাপাশি অন্য ব্যাচের শিক্ষার্থীদের ফলাফল ধস নামিয়ে দেওয়ার হুমকি দেওয়ার অভিযোগও করা হয়েছে। তবে নিজের বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন অধ্যাপক নাদির জুনাইদ। কর্তৃপক্ষ বলছে, এ ব্যাপারে অনুসন্ধান চলছে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


বিজ্ঞাপন


শিক্ষার্থীদের দাবি, স্নাতকোত্তর দ্বিতীয় সেমিস্টারে অধ্যাপক নাদির জুনাইদের কাছে দুটি অপশনাল কোর্স থাকলেও কোনো শিক্ষার্থী কোর্স দুটি নিয়ে আগ্রহী হননি। এই ক্ষোভ থেকেই শিক্ষক এমনটা করে থাকতে পারেন বলে ধারণা শিক্ষার্থীদের।

ভাইভাতে প্রশ্ন ‘কুকুরের পাঁচটি জাতের নাম বল’

সংশ্লিষ্ট ব্যাচের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মাস্টার্স দ্বিতীয় সেমিস্টারের কোর্সের সমন্বয়ক ছিলেন অধ্যাপক ড. নাদির জুনাইদ। ফলে তিনি মাস্টার্সের পরীক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান ও সমন্বিত কোর্সের (কোর্স নং এমসিজে-৫২৭) লিখিত পরীক্ষার প্রথম পরীক্ষক ছিলেন। অন্যদিকে, একই কোর্সের ভাইভা বোর্ডেও ছিলেন অধ্যাপক নাদির জুনাইদ।

কোর্সটির ফলাফল বিশ্লেষণে দেখা যায়, ওই কোর্সটিতে ৫৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩৫ জনই চার পয়েন্টের স্কেলে তিনের নিচে পেয়েছেন। এর মধ্যে ২.৫০ পেয়েছেন ১৪ জন, ২.২৫ পেয়েছেন ১২ জন, ২.০০ পেয়েছে পাঁচজন। এর মধ্যে, স্নাতক পর্যায়ে ফলাফলে প্রথম দশজনের মধ্যে মাস্টার্সে ভর্তি হওয়া ছয়জনের মধ্যে একজনই ২.৭৫ পেয়েছেন। অন্যরা ২.২৫ এর নিচে পেয়েছেন। এ ধরনের গ্রেডস-কে ‘নজিরবিহীন’ বলছেন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।


বিজ্ঞাপন


আরও পড়ুন

ঢাবি উপাচার্যের নামে ভুয়া জিমেইল অ্যাকাউন্ট

ভাইভায় অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, ভাইভাতে অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্ন করে পরীক্ষার্থীদের ভীত-সন্ত্রস্ত্র করে ফেলতেন তিনি। ফলে তাৎক্ষণিকভাবে জানা প্রশ্নের উত্তরও ভুল হয়ে যাচ্ছিল। ব্যাচের শিক্ষার্থী শাফাত রহমান ফেসবুকে লেখেন, তিনি ভাইভাতে আমাকে জিজ্ঞেস করেছেন, ‘ইন্দিরা গান্ধীর সন্তান কতজন?’ আরেক শিক্ষার্থীকে জিজ্ঞেস করেন, ‘কয়েকটি কুকুরের জাতের নাম বল’। আরেক শিক্ষার্থী বলেন, তিনি আমাকে প্রশ্ন করেছিলেন, কপিল দেব ১৯৮৩ বিশ্বকাপে যার রেকর্ড ছিল, সেই খেলোয়াড়ের দেশের সাথে পরের বিশ্বকাপে দুইটা রেকর্ড করে। রেকর্ডগুলো কী কী?’ -এ ধরনের অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্ন করে তিনি অন্য পরীক্ষকদের সামনেও শিক্ষার্থীর ‘ইম্প্রেশন’ খারাপ করে দেন। এরই প্রতিফলন ঘটেছে কম্পিহেনসিভের নাম্বারে।

বিভাগের আরেক শিক্ষার্থী বলেন, আমি ভাইভাতে ‘ইয়েস’ বলে তার একটা প্রশ্নের সাড়া দিয়েছিলাম। কেন তাকে ‘স্যার’ সম্বোধন করিনি- এনিয়ে অন্তত দশ মিনিট ধরে আমাকে বকাঝকা করেন। ফলে ভাইভার শুরুতেই আমি নার্ভাস হয়ে যাই। সব সাক্ষাৎকার গ্রহণকারীর শেষে তিনি আমাকে প্রশ্ন করতে শুরু করেন। তিনি আমাকে এত শুরু করেন যে, অন্য একজন শিক্ষক তাকে শেষ করার অনুরোধ করেন। এরপর অন্তত ৫-৭টি প্রশ্ন করেন। স্বাভাবিকভাবে সে সময় তিনি এমন পরিস্থিতি তৈরি করেছিলেন যে, আমি জানা প্রশ্নের উত্তরও ভুল করছিলাম।

প্রকাশিত হওয়ার আগে ফলাফল নিয়ে মন্তব্য

ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার আগে এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মের পরিপন্থী। তা সত্ত্বেও ১২তম ব্যাচের ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার আগে তা নিয়ে ১৩তম ব্যাচের একটি ক্লাসে মন্তব্য করেন বলে অভিযোগ ওঠে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে। ওই ব্যাচের এক শিক্ষার্থী জানান, কয়েক দিন আগে তিনি আমাদের ক্লাসে ১২তম ফলাফল নিয়ে কথা বলেন। অথচ সে সময় ফলাফল প্রকাশিতই হয়নি। এসময় তিনি বলেন, ‘১২তম ব্যাচের রেজাল্টটা দেখবা কী অবস্থা। আমি ওদের রেজাল্টে ধস নামিয়ে দিয়েছি। কয়েকজন ফেল করতে করতে পাস করে গেছে।’ পরীক্ষার ফলাফলে প্রভাব পড়তে পারে- এমন আশঙ্কায় ওই শিক্ষার্থী নাম প্রকাশ করেননি।

আরও পড়ুন

স্বর্ণপদক পেলেন ঢাবির ১২ শিক্ষার্থী

মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) একইভাবে ১৬তম ব্যাচের (দ্বিতীয় বর্ষ) ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার আগেই তিনি ওই ব্যাচের এক শিক্ষার্থীকে তার রেজাল্ট বলে দেন। একই ব্যাচের অন্য একজন শিক্ষার্থী জানান, আজ বিকেল চারটা নাগাদ আমাদের ব্যাচের ফলাফল নোটিশ বোর্ডে আনুষ্ঠানিকভাবে টাঙানো হয়। তবে, দুপুর দুইটার দিকেই ওই ব্যাচের শিক্ষার্থীকে অধ্যাপক নাদির জুনাইদ বলে দেন। পরে ওই শিক্ষার্থী তার ফলাফল নিয়ে আলোচনা করেন।

শিক্ষার্থীদের ফেসবুক অ্যাক্টিভিটি নজরদারি

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, অধ্যাপক নাদির জুনাইদ শিক্ষার্থীদের ফেসবুক কার্যক্রম নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করেন। এর ভিত্তিতে তিনি শিক্ষার্থীদের সাথে কেমন আচরণ করবেন, তা নির্ধারণ করেন। এমনকি ফেসবুক কার্যক্রম দেখে পরীক্ষায় নম্বর দেওয়ার হুমকিও দেন তিনি। সম্প্রতি দ্বিতীয় বর্ষের (১৬তম) শিক্ষার্থীদের এমন হুমকি দেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

DU2

এসব কার্যক্রমে বিরক্ত হয়ে অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তাকে নিয়ে পোস্ট করেন। এ নিয়ে সম্প্রতি ১৩ ব্যাচের এক শিক্ষার্থীকে কক্ষে ডেকে নিয়ে বকাঝকা করেন আলোচিত ওই শিক্ষক। বর্তমান শিক্ষার্থী হওয়ায় তিনিও নাম প্রকাশ করতে সাহস পাননি।

১২তম ব্যাচের এক নারী শিক্ষার্থী বলেন, ভাইভা বোর্ডে তিনি আমার ফেসবুক কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন করেন। আমি বিভিন্ন সময় মজা করে অনেক পোস্ট করি। এ নিয়ে তিনি আমাকে বিব্রতকর কথা বলতে শুরু করেন। আমি ভাইভাতে কেঁদেও দিয়েছিলাম।

বিভাগের শিক্ষার্থীরা জানান, অধ্যাপক নাদির জুনাইদ যেকোনো কোর্সের ক্লাসেই চলচ্চিত্র নিয়ে কথা বলতে শুরু করেন। সংশ্লিষ্ট কোর্স নিয়ে দুই এক মিনিট কথা বলেই চলচ্চিত্রের আলোচনা শুরু করেন। প্রায় প্রতিটি ক্লাসেই একই ধরনের কথা বলেন। ১৩ ব্যাচের এক শিক্ষার্থী বলেন, আমাদের ব্যাচের সার্বিক ফলাফল ভালো। তিনি আমাদের ক্লাসে এসে বলেন, ‘আমি যদি তোমাদের আরও কয়েকটি কোর্স নিতাম, তাহলে দেখতে তোমাদের রেজাল্ট কী হতো! তিনি বলেন, তোমরা নাকি অনেক মেধাবী। দেখি তোমাদের মেধা কেমন। এমন কথা বলে তিনি বিভিন্ন চলচ্চিত্রের নায়ক-নায়িকা ও সংলাপের বিষয়ে জিজ্ঞেস করতে শুরু করেন। স্বাভাবিকভাবে অনেকেই উত্তর দিতে পারে না। এ নিয়ে তিরস্কার করা শুরু করেন তিনি।’

নাদির জুনাইদের বক্তব্য

সার্বিক বিষয়ে অধ্যাপক ড. নাদির জুনায়েদ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘কম্প্রিহেনসিভ কোর্স আমি নিই না। সারা বছর যা পড়ে সব কোর্সের ওপরে তাদের কম্প্রিহেনসিভ পরীক্ষা নেওয়া হয়। ইচ্ছাকৃতভাবে একটা কোর্সে একজন শিক্ষক কীভাবে ফলাফল কমিয়ে দিতে পারে শিক্ষার্থীরা কি এটা বোঝে? পরীক্ষার নাম্বার তো একজন শিক্ষক দেন না। আর ভাইভাতেও তো একজন শিক্ষক থাকেন না।’

আরও পড়ুন

মারামারির জেরে ঢাবি ছাত্রলীগের ৪ কর্মী বহিষ্কার

১২তম ব্যাচের রেজাল্ট প্রকাশ করার এক মাস আগেই নিচের ব্যাচগুলোকে তাদের রেজাল্ট বলে দেন এমন অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, ‘না, এমনটা আমি করিনি। আমি প্রতি ব্যাচকেই বলি তোমাদের কিন্তু রেজাল্ট ভালো হচ্ছে না। আমি প্রতি সপ্তাহেই প্রেজেন্টেশন নেই। প্রেজেন্টেশনের দিনই সন্ধ্যায় আমি রেজাল্ট দিয়ে দিই। আমি তখন বলি- দেখ রেজাল্ট কমে গেল। কত কমে গেল? এমন হলে তো ভালো রেজাল্ট হবে না। আমি এটাও বলি দেখ, তোমাদের সিনিয়রদের গত বছরও এই কোর্স পড়িয়েছি, তারা নিশ্চয়ই ভুলে গেছে। তারা কিন্তু খারাপ করছে। তোমরা কিন্তু এমন কর না। আসলে তারা বানিয়ে বানিয়ে এসব কথা বলছে। আমিতো বলিনি কে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় হয়েছে। এটা দুঃখজনক ও লজ্জাজনক।’

অধ্যাপক নাদির জুনাইদ আরও বলেন, ‘তারা আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করছে কেন? আমি ক্লাসে ওদেরকে অনেক কড়াকড়া কথা বলি, অন্যান্য শিক্ষকদের মতো ঢালাওভাবে নম্বর দিই না, এজন্য অভিযোগ আমার বিরুদ্ধে?’

অভিযোগের বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল ঢাকা মেইলকে বলেন, ‘বিষয়টা সম্পর্কে আমি জেনেছি। বিষয়টা নিয়ে আমরা একটা অনুসন্ধান করব। আমি উপ-উপাচার্যকে (শিক্ষা) বলেছি কী হয়েছে সেটা জেনে বিশ্ববিদ্যালয়ের কন্ট্রোলার এবং বিভাগের সাথে কথা বলে এ সম্পর্কে আমাদের জানাতে। তারপরেই আমরা পরবর্তী সিদ্ধান্তে যাব।’

প্রতিনিধি/জেবি

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর