তেঁতুলিয়ায় চায়ের জমিনে আমের বিজয়ধ্বনি

এম মোবারক হোসেন পঞ্চগড়
প্রকাশিত: ২৪ এপ্রিল ২০২২, ০৪:৪৭ পিএম

দেশের সর্বোত্তরের জেলা পঞ্চগড়ে অর্থকরী ফসল হিসেবে চায়ের ব্যাপক আবাদ শুরু হয়েছে। বর্তমানে চা উৎপাদনে দেশের দ্বিতীয় অঞ্চল হিসেবে বেশ পরিচিতি পেয়েছে এ জেলা। মাটি বেশ উর্বর হওয়ায় পঞ্চগড়ে প্রায় সবধরনের চাষাবাদ হয়ে থাকে। বর্তমানে এ অঞ্চলে শাকসবজি, ধান, পাট, বাদাম, আখের পাশাপাশি চায়ের আবাদ বেড়েই চলেছে।

এখানকার আবহাওয়া ও পরিবেশ  দার্জিলিং অঞ্চলের নিকটবর্তী অঞ্চলের মতো। দিনের বেলায় গরম থাকলেও রাতে তাপমাত্রা অনেকটাই কমে যায়। তাই আবহাওয়াগত কারণে এখানকার পরিবেশ ও মাটি চা এর জন্য বেশ উর্বর হয়ে থাকে।
MANGO TEA PANCHGARHএবার দেখা গেল, চায়ের জমিতে আম চাষ করছেন জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার চা চাষিরা। জানা গেছে, বিগত কয়েক বছর ধরে চায়ের জমিতে আমের বাগান করছেন তারা। একই জমিতে চায়ের পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের ফলের চাষ করা হচ্ছে। মূলত সাথী ফসল হিসেবে পরীক্ষামূলকভাবে এসব চাষ করা হচ্ছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় জেলার বিভিন্ন উপজেলার চা বাগানে জমিতে একই সাথে আম, তেজপাতা, পেঁপেসহ বিভিন্ন বাগান করে সাফল্য পেয়েছেন অনেকে। একই বাগানে স্বল্প পরিসরে অন্য আবাদ করে দীর্ঘস্থায়ী চা বাগানের পাশাপাশি বাড়তি অর্থ পাওয়া যায়।

চাষিরা বলছেন, চা বাগানে আমের বিভিন্ন জাত যেমন— বানানা, বারি-৬, সূর্যাপুরী ধরনের গাছের লাগানো শুরু হয়েছে। এতে বাড়তি আয়ও হচ্ছে। তবে চায়ের বাগানে আম গাছ বেশি ঘন হলে চা গাছের পাতা কম হয়ে থাকে বলেও জানান তারা।
MANGO TEA PANCHGARHকথা হয় তেঁতুলিয়া উপজেলার সীমান্তবর্তী পুরাতন বাজার এলাকার চা-চাষি হারেজ আলম বলেন, আমি ৪ একর জমিতে চায়ের সাথে আমের চাষ করেছি। এ নিয়ে দু’বার আম বিক্রি করে বেশ লাভবান হয়েছি। আবহাওয়া ঠিক থাকলে এবারও চায়ের জমিতে নতুন করে লাগানো হবে আমের চারা। বর্তমানে উভয় ফসলের দাম ভালো পাওয়া যাবে বলে আশা করছি।

‘এ আম স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে দেশের অন্যান্য জেলায়ও যাচ্ছে। ব্যবসায়ীরা এসব বাগান থেকে আম সংগ্রহের জন্য যোগাযোগ করছেন।’

তিনি বলেন, আগামী জুন মাসের শেষে আম বাজারে আসবে। এতে আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারি।
mango tea তেঁতুলিয়া উপজেলার সফল আম চাষি সাবেক সদর ইউপি চেয়ারম্যান কাজী আনিসুর রহমান বলেন, ‘আমার কয়েকটি চা বাগানে পরীক্ষামূলকভাবে আমের গাছ রোপণ করেছি। চায়ের গাছ যখন লাগিয়েছি ওই জমিতে কিছু আমের চা লাগানো হয়েছিল। আবহাওয়া বেশ অনুকূলে থাকায় এবার গাছগুলিতে ফল বেশ ভালো এসেছে। গতবার গাছ ছোট হওয়ায় মুকুল ভেঙে দিয়েছি। এবছরে গাছ বড় হয়েছে ভালো ফল এসেছে এবং গাছটি ফলের ভার নিতে পারছে। আশা করছি  ফলন ভালো পাবো।

তেঁতুলিয়া উপজেলা কৃষি অফিসার মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, তেঁতুলিয়ায় বিভিন্ন চায়ের বাগানে জমিতে আম চাষ শুরু হয়েছে। চা বাগানে আম চাষ করে কৃষকরা লাভবান হওয়ার দিনদিন আগ্রহ বাড়ছে। বিগত বছরগুলোতে আমের স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে অন্য জেলায় বিক্রি করেছে চাষীরা। কৃষকরা ভালো দাম পেয়ে খুশি।

এএ