রয়েল এনফিল্ড হিমালয়ান: বিশ্বসেরা অ্যাডভেঞ্চার বাইক

প্রকাশিত: ১৯ নভেম্বর ২০২২, ০২:০৬ পিএম
রয়েল এনফিল্ড হিমালয়ান: বিশ্বসেরা অ্যাডভেঞ্চার বাইক

এই প্রজন্মের যারা মোটরসাইকেল চালান তারা রয়েল এনফিল্ডের নাম শুনে থাকবেন। বহুজাতিক এ অটোমোবাইল উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ভারত কাঁপাচ্ছে। সিসি লিমিটের কারণে বাংলাদেশে এই ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল বিক্রি হয় না। কিন্তু তরুণদের মধ্যে যারা ভারত ভ্রমণের সুযোগ পান, তারা সেখানে গিয়ে ভাড়ায় রয়েল এনফিল্ড চালান। 

রয়েল এনফিল্ডের বেশ কিছু মডেল আছে। এর মধ্যে হিমালয়ান মডেল বেশি জনপ্রিয়। এটি মূলত অ্যাডভেঞ্চার ট্যুরিং বাইক। অফ রোড বাইক হিসেবেও এর খ্যাতি আছে। 

royal enfieldযারা মোটরসাইকেল নিয়ে ট্যুরে যেতে ভালোবাসেন তাদের জন্যই এই মডেল ডিজাইন করা হয়েছে। বেশ শক্তপোক্ত গঠনে এই বাইক তৈরি। এর সাসপেনশন, আসন ও অন্যান্য সাজসজ্জা দেখলে মনে যেনো লম্বা রেসের ঘোড়া। আর তাইতো ভ্রমণপিপাসুদের প্রথম পছন্দ হিমালয়ান। 

রয়েল এনফিল্ড হিমালয়ান মোটরসাইকেলের ফিচার

এটি একটি ৪১১ সিসির ফুয়েল-ইনজেক্টেড, অয়েল কুলারসহ এয়ার-কুলড সিঙ্গল-সিলিন্ডার ইঞ্জিনে চলে।  এই ইঞ্জিন ২৪.৮ পিএস শক্তি এবং ৩২ নিউটন মিটার টর্ক তৈরি করতে পারে। এই ইঞ্জিনের পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন করার জন্য ৫ স্পিড গিয়ার ট্রান্সমিশন দেওয়া হয়েছে। যা ভালো হাইওয়ে ক্রুজিং ক্ষমতা ধরে রাখে। 

royal enfieldহিমালয়ান মডেলটি একটি হাফ-ডুপ্লেক্স স্প্লিট-ক্র্যাডল ফ্রেমে তৈরি করা হয়েছে। চালক ও আরোহীকে ঝাঁকুনিমুক্ত রাখতে সামনে ও পেছনে ৪১ এমএম ফ্রন্ট টেলিস্কোপিক ফর্ক ও একটি লিঙ্কযুক্ত রিয়ার মনোশক অ্যাবসর্ভার দেওয়া হয়েছে।

বাইকটির সামনের চাকায় ৩০০ এমএম ডিস্ক ব্রেক এবং পেছনে ২৪০ এমএম ডিস্ক ব্রেক দেওয়া হয়েছে। ব্রেকিংয়ের নিরাপত্তার জন্য সুইচসহ ডুয়াল চ্যানেল এবিএস সংযোজন করা হয়েছে। 

royal enfieldবাইকটির সামনের চাকা ২১ ইঞ্চির। পেছনে ১৭ ইঞ্চির। উভয় চাকায় স্পোক হুইল এবং ডুয়েল পারপাসা টায়ার রয়েছে। 

ভারতে মাত্র ২.১৫ লাখ রুপিতে পাওয়া যাচ্ছে রয়েল এনফিল্ড হিমালয়ান। 

ভারতে রয়েল এনফিল্ডের কারখানা চেন্নাই, তামিলনাড়ুতে। 

এজেড