সোমবার, ১৭ জুন, ২০২৪, ঢাকা

পৃথিবীর জলবায়ু পর্যবেক্ষণ করবে নাসার স্যাটেলাইট

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩ জানুয়ারি ২০২৩, ০৩:৩০ পিএম

শেয়ার করুন:

পৃথিবীর জলবায়ু পর্যবেক্ষণ করবে নাসার স্যাটেলাইট

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় নতুন দিগন্ত উন্মোচন করেছে। এজন্য প্রতিষ্ঠানটি একটি স্যাটেলাইট বা কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করেছে। 

এসডব্লুওটি নামের এই স্যাটেলাইট বিজ্ঞানীদের জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত সমস্ত প্রশ্নের উত্তর দিতে সক্ষম হবে।


বিজ্ঞাপন


এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে মহাকাশ থেকে পৃথিবীর জলাশয় পর্যবেক্ষণ করা যাবে। সেজন্য নাসার ওই জল উপগ্রহ তার অ্যান্টেনা উন্মোচন করছে।

nasaসাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া থেকে উৎক্ষেপণের পর নাসার সারফেস ওয়াটার অ্যান্ড ওশান টপোগ্রাফি সংক্ষেপে এসডব্লুওটি স্যাটেলাইট মহাকাশযানকে শক্তি দেয়, এমন সৌর প্যানেল অ্যারে সফলভাবে স্থাপিত হয়েছে। 

সম্প্রতি মহাকাশে ওই স্যাটেলাইটের বড় মাস্তুল ও অ্যান্টেনা প্যানেলগুলো উন্মোচন করেছে। উন্নত রাডার স্যাটেলাইট আমাদের গ্রহের জলাশয়গুলো নিয়ে পর্যবেক্ষণ দিতে সম্ভবপর হবে বিজ্ঞানীদের। 

এর ফলে জলবায়ু পরিবর্তনের পরিণতি সম্পর্কে নতুন এক ধারণা দিতে সক্ষম হবেন বিজ্ঞানীরা। 


বিজ্ঞাপন


স্যাটেলাইটের দুইটি অ্যান্টেনা সফলভাবে চার দিনের ব্যবধানে মোতায়েন করা হয়েছে। অ্যান্টেনাগুলোতে ফোকাস করা দুইটি ক্যামেরা মহাকাশযান থেকে মোতায়েন রাখা হয়েছে। 

ক্যামেরাগুলো সম্পূর্ণরূপে স্থাপন করা অ্যান্টেনাগুলোকে ক্যাপচার করতে পারেনি। তবে দলটি টেলিমেট্রি ডেটা দিয়ে তা নিশ্চিত করেছে।

দুইটি অ্যান্টেনা মাস্তুলের উভয়প্রান্তে প্রায় ১০ মিটার দূরে অবস্থিত। এগুলো আমাদের গ্রহের জলাশয়ে পানির উচ্চতার সুনির্দিষ্ট পরিমাপ ক্যাপচার করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। যন্ত্রটি ২০ কিলোমিটার বিস্তৃত স্রোত এবং সমুদ্রের বৈশিষ্ট্যগুলো শনাক্ত করতে সক্ষম হবে। 

nasaএটি ৬২ হাজার ৫০০ বর্গমিটার থেকে বড় হ্রদ এবং ১০০ মিটারেরও বেশি চওড়া নদীগুলো থেকে ডেটা সংগ্রহ করতে সক্ষম। সূর্যের চারপাশে ঘোরার সময় কীভাবে পরিবর্তন হয় শনির বলয়, দেখিয়ে দিল নাসা ইন্টারফেরোমিটার আমাদের গ্রহের জলের পৃষ্ঠ থেকে রাডার ডাল বাউন্স করে এটি করতে সক্ষম। 

এটি উভয় অ্যান্টানে সংকেত গ্রহণ করে এবং উপগ্রহের উভয় পাশে ৫০ কিলোমিটার প্রশস্ত একটি অঞ্চল বরাবর ডেটা সংগ্রহ করে। 

এসডব্সুওটি-এর তথ্য বিজ্ঞানীদের সবথেকে জরুরি জলবায়ু পরিবর্তনের কিছু প্রশ্নের সমাধান করতে সাহায্য করবে।

এখানে উল্লেখ্য, ক্যালিফোর্নিয়া থেকে ওই স্পেস-এক্স রকেট উৎক্ষেপণ করা হয়েছে ১৫ ডিসেম্বর।

nasaএই স্পেস-এক্স একটি মার্কিন-ফরাসি উপগ্রহ বহন করে নিয়ে যায় মহাকাশে। পৃথিবীর পৃষ্ঠে জলের সার্ভে করার জন্য এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে নাসার পক্ষে।

এই ঘটনাকে জলবায়ু পরিবর্তনের উপর নতুন আলোকপাত বলে বর্ণনা করা হয়েছে। এটি ফ্যালকন নাইন রকেট নাসা চুক্তির অধীনে বিলিওনেয়ার ইলন মাস্কের বাণিজ্যিক লঞ্চ কোম্পানির মালিকানাধীন। লস এঞ্জেলেস থেকে প্রায় ১৭০ মাইল বা প্রায় ২৭৫ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে ভ্যানডেনবার্গ ইউএস স্পেস ফোর্স বেস থেকে ওই রকেট উৎক্ষেপণ হয়।

এজেড

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর