সোমবার, ৪ মার্চ, ২০২৪, ঢাকা

ছয় হাজার কোটি টাকায় বিক্রি হলো নারী আইপিএল ফ্রাঞ্চাইজি 

স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৫ জানুয়ারি ২০২৩, ০৬:৫৮ পিএম

শেয়ার করুন:

ছয় হাজার কোটি টাকায় বিক্রি হলো নারী আইপিএল ফ্রাঞ্চাইজি 

চলতি বছর থেকেই পাঁচ দলের মহিলা আইপিএল শুরু করতে যাচ্ছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। দল বিক্রির জন্য কয়েকদিন আগেই দরপত্র আহব্বান করেছিল বোর্ড। টেকনিক্যাল দরপত্রও জমা পড়েছিল বিভিন্ন সংস্থার পক্ষ থেকে। এদিকে আজ দুপুরে বিসিসিআই তাদের অফিশিয়াল টুইটার একাউন্টে 'উইমেনস প্রিমিয়ার লিগ'-এর পাঁচটি  ফ্র্যাঞ্চাইজি ঘোষণা করেছে। উইমেন্স প্রিমিয়ার লিগের উদ্বোধনী সংস্করণ যে পাঁচটি ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক শহরের নামে দেখা যাবে সেগুলো হল আহমেদাবাদ, মুম্বাই, বেঙ্গালুরু, দিল্লি ও লাখনউ।

এদিকে ওমেন্স প্রিমিয়ার লিগ আসরে রেকর্ড গড়ে ৪৬৭০ কোটি রুপিতে (বালাদেশি টাকায় যা ৬ হাজার কোটি) বিভিন্ন কোম্পানির মোট পাঁচটি ফ্রাঞ্চাইজি কিনে নিয়েছে। যা ২০০৮ সালে পুরুষদের আইপিএল উদ্বোধনী নিলাম রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে।  


বিজ্ঞাপন


অন্যদিকে কি পরিমান অর্থে ফ্রাঞ্চাইজি গুলো দলগুলোকে নিজেদের করে নিয়েছে তা ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড এক টুইটে জানায়, আদানি স্পোর্টসলাইন প্রাইভেট লিমিটেড ১২৮৯ কোটি রুপিত কিনে নিয়েছে আহমেদাবাদের স্বত্ব। যা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১৬৮০ কোটি। এছাড়া দ্বিতীয়তে ইন্ডিয়াউইন স্পোর্টস প্রাইভেট লিমিটেড ৯১২.৯৯ কোটি রুপিতে কিনে নিয়েছে মুম্বাইয়ের স্বত্ব (বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১১৯০ কোটি)। তিনে ৯০১ কোটি ভারতীয় রুপিতে রয়েল চ্যালেঞ্জারস স্পোর্টস প্রাইভেট লিমিটেড কিনে নিয়েছেন বেঙ্গালুরুর স্বত্ব (বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১১৭৪ কোটি)। চারে ৮১০ কোটি ভারতীয় রুপিতে জিএমআর ক্রিকেট প্রাইভেট লিমিটেড কিনে নিয়েছেন দিল্লির স্বত্ব (বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১০৫৬ কোটি)। তালিকায় শেষ দল হিসেবে ৭৫৭ কোটি ভারতীয় রুপিতে কাপ্রি গ্লোবাল হোল্ডিং প্রাইভেট লিমিটেড কিনে নিয়েছেন লাখনউয়ের স্বত্ব (বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৯৮৭ কোটি)।     

সব মিলিয়ে এই টুর্নামেন্টে বিসিসিআইয়ের মোট আয় গিয়ে দাঁড়ায় ৬ হাজার কোটি টাকায়। এই প্রসঙ্গে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে বিসিসিআই সেক্রেটারি জয় শাহ আজ নিজের টুইটার একাউন্টে টুইট করে বলেন, ‘আজ ক্রিকেটে একটি ঐতিহাসিক দিন। কারণ, উদ্বোধনী মহিলা আইপিএলের দলগুলির জন্য বিডিং ২০০৮ সালের পুরুষদের আইপিএলের উদ্বোধনী রেকর্ডকে ভেঙে দিয়েছে। বিজয়ীদের অভিনন্দন। কারণ, আমরা মোট দর ৪৬৬৯.৯৯ (ভারতীয় রুপি) কোটি টাকা অর্জন করেছি। এটি প্রমিলা ক্রিকেটে একটি বিপ্লবের সূচনা করেছে। শুধুমাত্র ভারতীয় মহিলা ক্রিকেটারদের জন্য নয়, সমগ্র ক্রীড়া সম্প্রদায়ের জন্য একটি পরিবর্তনমূলক যাত্রার পথ প্রশস্ত করেছে। উইমেন্স আইপিএল প্রমিলা ক্রিকেটে প্রয়োজনীয় সংস্কার আনবে ও একটি সর্বাঙ্গীণ বাস্তুতন্ত্র নিশ্চিত করবে যা প্রতিটি দলকে উপকৃত করবে। মহিলা আইপিএল-এর যাত্রা শুভ হোক।’

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর