সোমবার, ২২ এপ্রিল, ২০২৪, ঢাকা

যাদের জাকাত দিলে সওয়াব বেশি, যাদের দিলে কবুল হবে না

ধর্ম ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:২৫ পিএম

শেয়ার করুন:

যাদের জাকাত দিলে সওয়াব বেশি, যাদের দিলে কবুল হবে না

জাকাত ফরজ ইবাদত এবং ইসলামের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভ। পবিত্র কোরআনে জাকাত আদায়ের নির্দেশ দিয়ে মহান আল্লাহ বলেন- وَ اَقِیْمُوا الصَّلٰوةَ وَ اٰتُوا الزَّكٰوةَ ‘তোমরা নামাজ আদায় করো এবং জাকাত প্রদান করো। (সুরা বাকারা: ১১০)

জাকাত দিতে হয় নির্ধারিত খাতে। অন্যথায় জাকাত আদায় হয় না, কবুলও হয় না। পবিত্র কোরআনে বর্ণিত নির্ধারিত ৮টি খাত হলো- ১. ফকির ২. মিসকিন ৩. আমেল তথা জাকাতের কাজে নিযুক্ত ব্যক্তি ৪. (নওমুসলিমের) মন জয় করার জন্য ৫. দাসমুক্তি তথা দাসত্বের শৃঙ্খলে আবদ্ধ লোক। ৬. ঋণগ্রস্তদের ঋণ পরিশোধে জাকাত দেওয়া যাবে ৭. ফি সাবিলিল্লাহ বা আল্লাহর পথে এবং ৮. মুসাফির। (সুরা তাওবা: ৬০)


বিজ্ঞাপন


এই ৮টি খাতে উপযুক্ত ব্যক্তিকে মালিক বানিয়ে দেওয়া জরুরি; অন্যথায় জাকাত আদায় হবে না। 

আরও পড়ুন: যেসব সম্পদের জাকাত দিতে হবে না

যাদের জাকাত দিলে সওয়াব বেশি
যারা জাকাতের বেশি হকদার তাদেরকে দিতে পারলেই সওয়াব বেশি হবে। তারা কারা? তারা হলেন-আপন ভাইবোন, ভাগনে–ভাগনি, ভাতিজা–ভাতিজি, চাচা–জেঠা–ফুফু, মামা–খালা; চাচাতো–জেঠাতো ভাইবোন, ফুফাতো ভাইবোন, মামাতো–খালাতো ভাইবোন এবং অন্য নিকটাত্মীয় যদি নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক না হন, তাহলে তাদেরকে জাকাত, সদকাতুল ফিতর, ওয়াজিব সদাকাহ, ফিদিয়া, কাফফারা ও মান্নত দেওয়া যাবে; বরং তাদের অগ্রাধিকার দিতে হবে। কারণ হাদিস শরিফে আছে নিকটাত্মীয়দের দান করলে দ্বিগুণ সওয়াব হয়—প্রথমত, দানের সওয়াব; দ্বিতীয়ত, আত্মীয়তার সম্পর্ক রক্ষার সওয়াব। (সুনানে নাসায়ি: ২৫৮২)

যাদের জাকাত-ফিতরা দেওয়া যায় না
১. অমুসলিম
২. নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক। 
৩. নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিকের নাবালক সন্তান। 
৪. বনু হাশেমের লোক। 
৫. মা-বাবা, দাদা-দাদি, নানা-নানি—এভাবে ওপরের স্তরের কাউকে জাকাত দেওয়া যাবে না। অর্থাৎ যাদের মাধ্যমে দুনিয়ায় এসেছে, তাদেরসহ ওপরের স্তরের কাউকে জাকাত দেওয়া যাবে না। 
৬. নিজের মাধ্যমে যারা দুনিয়ায় এসেছে, অর্থাৎ ছেলে-মেয়ে ও তাদের সন্তানাদি একইভাবে তাদের সন্তানদেরও জাকাত দেওয়া যাবে না। 
৭. স্ত্রী ও স্বামী একে অন্যকে জাকাত দিতে পারবে না। 
৮. মসজিদ-মাদরাসা, পুল, রাস্তা, হাসপাতাল বানানোর কাজে ও মৃতের দাফনের কাজে জাকাতের টাকা দেওয়া যাবে না। 
(ফতোয়ায়ে হিন্দিয়া: ১/১৮৮, ১৮৯; তাতারখানিয়া: ৩/২০৬; আদদুররুল মুখতার: ৩/২৯৪, ২৯৫)


বিজ্ঞাপন


আরও পড়ুন: সর্বনিম্ন কত টাকা থাকলে জাকাত ফরজ?

জাকাতের অর্থ শুধু গরিবদের ব্যক্তিমালিকানায় দিলেই জাকাত আদায় হয়। মসজিদ, হাসপাতাল, রাস্তাঘাট, কালভার্ট ও হাসপাতাল নির্মাণের ক্ষেত্রে জাকাতের অর্থ খরচ করা যাবে না। কারণ এসব ক্ষেত্রে জাকাতের অর্থ ব্যয় ব্যক্তিবিশেষকে মালিক বানিয়ে দেওয়া হয় না। (তাতারখানিয়া: ৩/১৯৮, ২০৮; দুররুল মুখতার: ৩/১৭১-১৭৩)

জাকাতের টাকা দিয়ে কাপড় কিনে দিলেও জাকাত আদায় হয়ে যাবে। অন্তরে জাকাতের নিয়ত রেখে মুখে তা উল্লেখ না করে দিয়ে দিলেও জাকাত আদায় হয়ে যাবে। (হেদায়া: ১/২০৬, বাদায়ে: ২/৪৯) 

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে যথাযথভাবে জাকাত আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর