বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪, ঢাকা

কানাডায় উদীচীর বর্ষপূর্তি উদযাপিত

লায়লা নুসরাত, কানাডা থেকে
প্রকাশিত: ২০ নভেম্বর ২০২৩, ০৮:২৭ পিএম

শেয়ার করুন:

কানাডায় উদীচীর বর্ষপূর্তি উদযাপিত
কানাডায় উদীচীর বর্ষপূর্তি উদযাপিত

‘সংস্কৃতির সংগ্রামে দ্রোহের দীপ্তি, মুক্তির লড়াইয়ে অজেয় শক্তি’— এই শ্লোগানকে সামনে রেখে কানাডায় উদযাপিত হলো উদীচীর ৫৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও উদীচী কানাডার ২৫তম বর্ষপূর্তি।

টরন্টোর হোপ ইউনাইটেড চার্চে সন্ধ্যা ৬টায় মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্বালনের মাধ্যমে শুরু হয় উদীচীর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানমালা। অন্টারিওর প্রাদেশিক সংসদ সদস্য ডলি বেগম শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। তিনি বাঙালি সংস্কৃতি বিকাশে উদীচী কানাডার ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন।


বিজ্ঞাপন


সাংস্কৃতিক আন্দোলনে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার জন্য অনুষ্ঠানে আজীবন সম্মাননা প্রদান করা হয় বিদ্যুৎ রঞ্জন দে, আজিজুল মালিক ও নুরুল আলম লালকে। তাদেরকে উত্তরীয় পরিয়ে সম্মাননা জানান বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজমুল হোসেন মনা ও উদীচীর অন্যতম উপদেষ্টা আলেয়া শরাফী।

নতুন প্রজন্মকে বাংলা সংস্কৃতির প্রতি উৎসাহিত করার জন্য উদীচী গত মাসে শিশু-কিশোরদের নিয়ে নৃত্য, আবৃত্তি, সঙ্গীত, চিত্রাঙ্কন ও তবলা প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল। ওই প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে ক্রেস্ট ও সনদপত্র তুলে দেওয়া হয়। প্রতিযোগিতায় শিশু-কিশোরদের আঁকা ছবি দিয়ে তৈরি ২০২৪ সনের ক্যালেন্ডারের মোড়ক উন্মোচন করেন উদীচীর অন্যতম উপদেষ্টা বিদ্যুৎ রঞ্জন দে। এছাড়া উদীচী কানাডা সংসদের ওয়েবসাইট উদ্বোধন করেন কানাডা উদীচীর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আজিজুল মালিক ও স্বপন বিশ্বাস।

প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী শিশু-কিশোরদের অংশগ্রহণে পরিবেশিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এ পর্বে নৃত্য পরিচালনা করেন নৃত্যশিল্পী বিপ্লব কর, গানের অংশ পরিচালনা করেন ড. মমতাজ মমতা এবং কবিতার অংশটি পরিচালনা করেন শিউলি জাহান।

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে উদীচীর শিল্পীরা সমবেত সংগীত, কবিতা ও নৃত্য পরিবেশন করেন। এ পর্বের নৃত্য পরিচালনায় ছিলেন সীমা বড়ুয়া। উদীচীর শিল্পীরা কাজী নজরুল ইসলামের ‘কারার ঐ লৌহকপাট’ গানটি পরিবেশন করেন। সবশেষে সংগঠনের সভাপতি সুভাষ দাশ ও সাধারণ সম্পাদক মিনারা বেগম উপস্থিত দর্শক-শ্রোতা, কলাকুশলী, উদীচীকর্মী ও পৃষ্ঠপোষকদের ধন্যবাদ জানান।


বিজ্ঞাপন


উল্লেখ্য, ১৯৬৮ সালের ২৯ অক্টোবর শিল্পী-সংগ্রামী, কৃষক নেতা সত্যেন সেন, সাহিত্যিক, সাংবাদিক, প্রাবন্ধিক রণেশ দাশগুপ্ত, শহীদুল্লাহ কায়সারসহ একঝাঁক প্রগতিশীল বুদ্ধিজীবী ও তরুণের নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। লক্ষ্য ছিল একটি শোষণমুক্ত, অসাম্প্রদায়িক ও সাম্যবাদী সমাজ প্রতিষ্ঠা করা।

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর