আন্দোলন স্তব্ধ করতেই দুই নেতাকে হত্যা: ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩ আগস্ট ২০২২, ০৮:২৯ পিএম
আন্দোলন স্তব্ধ করতেই দুই নেতাকে হত্যা: ফখরুল
ফাইল ছবি

বিরোধী দলের গণতান্ত্রিক আন্দোলনকে স্তব্ধ করতেই ভোলায় দলীয় দুজন বলিষ্ঠ নেতাকে হত্যা করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বুধবার (৩ আগস্ট) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

ঢাকার কমফোর্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গুলিবিদ্ধ ভোলা জেলা জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সভাপতি নুরে আলমের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশের পাশাপাশি এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে ওই বিবৃতি দেন বিএনপি মহাসচিব।

মির্জা ফখরুল বলেন, জনগণের প্রতিবাদ-বিক্ষোভে দিশেহারা হয়ে মানুষ হত্যার মতো হঠকারী সিদ্ধান্ত নিয়ে সরকার পুরো দেশে এক ভয়ের সংস্কৃতি চালু করেছে। এর দায়-দায়িত্ব সম্পূর্ণভাবে সরকারকেই বহন করতে হবে।

বিএনপির শীর্ষ এই নেতা বলেন, সরকার দুঃশাসন চালু করে মূলত জনগণের প্রতি প্রতিশোধ নিচ্ছে। বিএনপির ওপর নির্বিচারে হামলা ও জীবন কেড়ে নিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।

ফখরুল বলেন, ভোলায় বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গুলি করে হত্যা সরকারের এক অশুভ পরিকল্পনার অংশ। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও সারসহ ভয়াবহ আর্থিক সংকটকে ধামাচাপা দেওয়ার জন্য মানুষের চোখকে অন্যদিকে সরাতে গত ৩১ জুলাই আব্দুর রহিম এবং গুরুতর আহত নুরে আলমের আজকের মৃত্যু- এই দুটি হত্যাকাণ্ডই সুপরিকল্পিত।

জনস্বার্থে বিএনপির শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে এ ধরণের বর্বরোচিত হামলার মাধ্যমে দুটি তাজা প্রাণ কেড়ে নেওয়ার ঘটনা বিশ্ববিবেককে নাড়া দিয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বর্তমানে দেশের মানুষ এক জালিম সরকারের শাসনে বসবাস করছে। কিন্তু এ দেশের সাহসী জনতা অতীতেও যেমন সকল স্বৈরাচারকে আস্তাকুঁড়ে নিক্ষেপ করেছে, বর্তমান স্বৈরাচারী সরকারকেও তীব্র গণআন্দোলনের মাধ্যমে ক্ষমতাচ্যুত করতে রাস্তায় নেমে এসেছে। পুলিশের এই হত্যাকাণ্ডে জনগণের শক্তি আরও সংহত হবে এবং সরকারের পতন তরান্বিত হবে।

বিবৃতিতে ভোলা জেলা ছাত্রদল সভাপতি নুরে আলমের রুহের মাগফিরাত কামনার পাশাপাশি তার শোকাহত পরিবার-পরিজন ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব।

এমই/আইএইচ