রোববার, ২১ এপ্রিল, ২০২৪, ঢাকা

যেভাবে মোটরসাইকেল চোর হয়ে উঠলেন ঢাবির মেধাবী শিক্ষার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৯ মার্চ ২০২৩, ০১:০৪ পিএম

শেয়ার করুন:

যেভাবে মোটরসাইকেল চোর হয়ে উঠলেন ঢাবির মেধাবী শিক্ষার্থী

রাজধানীর মিরপুর রাইনখোলা বড় মসজিদের সামনে থেকে মোটরসাইকেল চুরির অভিযোগে দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।  এ ঘটনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক এক মেধাবী ছাত্রকেও গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর মোটরসাইকেল চোর চক্রে জড়িত হওয়ার বিষয়টি পুলিশের কাছে বর্ণনা দিয়েছেন ওই শিক্ষার্থী।

রোববার (১৯ মার্চ) মিরপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন সাংবাদিকদের কাছে এমন তথ্য জানিয়েছেন। 


বিজ্ঞাপন


গ্রেফতারকৃতরা হলেন, রেজা মো. সাইমুন ওরফে তরুণ (৩৫) ও সাদমান সাকিব (২৯)। গ্রেফতারকৃত সাইমুন ওরফে তরুণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিলেন। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় সাতটি মামলা রয়েছে।  

ওসি মোহাম্মদ মহসীন জানান, রেজা মো. সাইমুন ওরফে তরুণ ছিলেন মেধাবী শিক্ষার্থী। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ২০১১-১২ সেশনের শিক্ষার্থী ছিলেন। কিন্তু স্নাতক শেষ করতে পারেননি। ২০১৫ সালে চতুর্থ বর্ষে থাকাকালে বহিষ্কার হওয়ার পর পড়ালেখা ছেড়ে দেন। এরপর কিছুদিন একটি গানের দলে ছিলেন, বিভিন্ন স্টেজ শো করতেন। 
 
মোহাম্মদ মহসীন জানান, তরুণ পরে মোটরসাইকেল চুরিতে জড়িয়ে পরেন। ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে মোটরসাইকেল চুরি করে মুন্সীগঞ্জে বিক্রি করেন। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় সাতটি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে দুটি মামলায় তার সাজাও হয়। 

তিনি আরও জানান, গ্রেফতার আরেক আসামি সাকিব আর্কিটেকচারাল ভিজুয়ালাইজেশন বিষয়ে ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির অধীনে ডিআইপিটিআইয়ের ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের ক্যাম্পাস থেকে ২০১৫ সালে ডিপ্লোমা করেন।

ওসি বলেন, সাধারণত মোটরসাইকেল চুরি করা কোনো চোরের কাছ থেকে অন্যরা শিখলেও তরুণ শেখেন নিজে নিজে। আর এক্ষেত্রে তিনি সহযোগিতা নেন ইউটিউবের। মোটরসাইকেলের তালা কীভাবে ভাঙে, তা শিখে প্রথমে নিজের মোটরসাইকেলে প্রয়োগ করেন। এরপর শুরু করেন চুরি। প্রথম প্রথম ধরা না পরলেও পরে বেশ কয়েকবার পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন। সর্বশেষ ২০২১ সালে গ্রেফতার হয়ে ১৫ মাস জেল খেটে দুই মাস আগে জামিন পান। জামিনে বেরিয়ে গতকাল রাতে আবারও মোটরসাইকেল চুরি করতে গেলে জনতার হাতে ধরা পরেন। এরপর পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।


বিজ্ঞাপন


নতুন মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।

কেআর/এমএইচএম

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর