সড়ক পরিবহন আইনের বিধিমালা দ্রুত জারির দাবি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১ অক্টোবর ২০২২, ১১:৫০ এএম
সড়ক পরিবহন আইনের বিধিমালা দ্রুত জারির দাবি

সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ এর অধীন বিধিমালা দ্রুত জারির দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ রোড সেইফটি কোয়ালিশন বাংলাদেশ।

শনিবার (১ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে নিরাপদ সড়ক চাই, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়সহ বেসরকারি দশটি সংস্থা এ দাবি জানিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ২০১৮ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর মহান জাতীয় সংসদে পাস হয় সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮। বহুল আলোচিত এ আইন পাস হওয়ার চার বছর পূর্ণ হলেও তা বাস্তবায়নে বিধিমালা তৈরি হয়নি। ফলে সড়ককে নিরাপদ করার কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ ও আইনের বাস্তবায়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। ফলে সড়কে প্রতিষ্ঠা হচ্ছে না শৃঙ্খলা, বাড়ছে মৃত্যু। তাই রোড সেইফটি কোয়াশিনের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে সড়ক পরিবহন বিধিমালা দ্রুত জারি ও এর যথাযথ বাস্তবায়নের জন্য কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, সড়ক দুর্ঘটনা বিশ্বব্যাপী মানুষের নিহত ও আহত হওয়ার অন্যতম প্রধান কারণ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রকাশিত গ্লোবাল স্ট্যাটাস রিপোর্ট অন রোড সেইফটি ২০১৮- এর তথ্য মতে, বিশ্বে প্রতিবছর প্রায় ১০ লাখ ৩৫ হাজার মানুষের মৃত্যু হয় সড়ক দুর্ঘটনায়। বিশ্বব্যাপী শতকরা ৯০ ভাগ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশসমূহে, যার সংখ্যা উন্নত দেশসমূহের তুলনায় তিনগুণ বেশি।

আয়োজকদের পক্ষ থেকে বলা হয়, সড়ক দুর্ঘটনাজনিত মানুষের মৃত্যু, পঙ্গুত্ব ও অসুস্থতা এবং সংশ্লিষ্ট অর্থনৈতিক ক্ষতি লাঘবের উদ্দেশ্যে জাতিসংঘের সংশ্লিষ্ট সংস্থাসমূহ এবং এর সদস্যভুক্ত প্রায় প্রতিটি দেশের সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহ সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতের সংখ্যা শতকরা ৫০ ভাগ কমানোর জন্য টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (SDG) ৩.৬ অর্জনের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ ও কার্যক্রম পরিচালনায় সহায়তা করা। গ্লোবাল প্ল্যান ফর সেকেন্ড ডিকেড অব অ্যাকশন ফর রোড সেইফটি ২০২১-২০৩০' নিশ্চিত করতে কার্যকর কর্মপন্থা নির্ধারণ করে সেগুলো বাস্তবায়নে সহযোগিতা করা।

সড়ক নিরাপত্তা নিয়ে সরকারের কর্মকাণ্ডের কথা তুলে ধরে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বর্তমান সরকার তার সংশ্লিষ্ট সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানসমূহের সহায়তায় সড়ক নিরাপত্তার বিষয়টিকে অগ্রাধিকার বিবেচনায় এর সমাধানের জন্য প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে সড়ক দুর্ঘটনা ও ক্ষয়ক্ষতির ব্যাপকতা বহুমাত্রিক হওয়ায় সরকারের একার পক্ষে তা নিরসন করা সম্ভব নয়। এর জন্য প্রয়োজন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের বিভিন্ন সংস্থা, প্রতিষ্ঠান এবং বিশেষজ্ঞ ব্যক্তিদের সম্মিলিত প্রচেষ্টা এবং কার্যকর উদ্যোগ।

বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনা হ্রাস করতে সরকারকে সহযোগিতা করার উদ্দেশ্যে রোড সেফটি কোয়ালিশন বাংলাদেশের যাত্রা শুরু করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, সড়ক দুর্ঘটনা রোধে বাংলাদেশ সরকার বিভিন্ন সময়ে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করছে যার মধ্যে অন্যতম হলো সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ প্রণয়ন। এই আইনের কিছু সবল দিক থাকলেও এর সীমাবদ্ধতা রয়েছে প্রচুর। যার মধ্যে অন্যতম হলো- আইনটিতে হেলমেট পরিধানের বাধ্যবাধকতা থাকলেও এর মানদণ্ড ও ব্যবহারবিধি আইনে অনুপস্থিত। আইনে গতিসীমা লঙ্ঘনে শাস্তির বিধান থাকলেও গতিসীমা নির্ধারণ, এর বাস্তবায়ন ও পর্যবেক্ষণের নির্দেশনা ও গাইডলাইন সন্নিবেশিত হয়নি যা বাস্তবায়ন অযোগ্য। এছাড়া যাত্রীদের সিটবেল্ট ব্যবহারের বাধ্যবাধকতা ও শিশুদের ক্ষেত্রে চাইন্ড রেস্ট্রেইন্ট বা শিশুদের জন্য নিরাপদ বা সুরক্ষিত আসন ব্যবহারের বাধ্যবাধকতা আইনটিতে সংযোজন করা হয়নি।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, চার বছরেও সড়ক পরিবহন আইনের বিধিমালা তৈরি হয়নি। একটি গোষ্ঠী শুরু থেকেই আইনটিকে দুর্বল করতে চাচ্ছে। আইন সংশোধনের দাবিতে তারা আন্দোলনও করেছে। আইনটি কার্যকর করতে হলে দ্রুত বিধিমালা করা প্রয়োজন।

বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতিবছর ২৫ হাজার মানুষ মারা যায় বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়। বিভিন্ন সংগঠনের সড়ক দুর্ঘটনার তথ্যে বিস্তর ফারাকের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, বেসরকারি সংগঠনগুলো গণমাধ্যমের তথ্যের ভিত্তিতে দুর্ঘটনার প্রতিবেদন তৈরি করে। এসবই সেকেন্ডারি তথ্য, পূর্ণাঙ্গ তথ্য না। সড়ক দুর্ঘটনার প্রতিবেদন তৈরির দায়িত্ব বেসরকারি সংগঠনের না। এ প্রতিবেদন সরকারের করা উচিত। দীর্ঘদিন ধরে বলা হলেও সরকার এ প্রতিবেদন তৈরি করছে না।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন নিরাপদ সড়ক চাই'র চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন, ব্র্যাকের রোড সেইফটি প্রোগ্রামের (প্রজেক্ট) ম্যানেজার এম. খালিদ মাহমুদ, গ্লোবাল হেলথ অ্যাডভোকেসি ইনকিবিউটরের কান্ট্রি কোঅর্ডিনেটর ড. শরিফুল আলম, ব্র্যাকের রোড সেইফটি প্রোগ্রাম পরিচালক আহমেদ নাজমুল হুসেইন, বুয়েটের এক্সিডেন্ট রিচার্স ইনস্টিটিউটের পরিচালক ড. হাদিউজ্জামান, বুয়েটের সহকারী অধ্যাপক কাজী সাইফুন নেওয়াজ, ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের পরিচালক ড. মাহফুজুর রহমান ভূঁইয়া, সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ, বাংলাদেশ (সিআইপিআরবি)'র পরিচালক ড. সেলিম মাহমুদ চৌধুরী, ঢাকা আহছানিয়া মিশনের স্বাস্থ্য ও ওয়াশ সেক্টরের পরিচালক ইকবাল মাসুদ, বিএনএনআরসি'র প্রধান নির্বাহী এএইচএম বজলুর রহমান, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মিডিয়া কো-অর্ডিনেটর রেজওয়ান নবীন, ইমপ্রেসিভ কমিউনিকেশনস লিমিটেড ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাসিবুজ্জামান প্রমুখ।

বিইউ/জেবি