সাপের ভয় দেখিয়ে টাকা আদায়, জিম্মি পথচারীরা

প্রকাশিত: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:৩০ পিএম
সাপের ভয় দেখিয়ে টাকা আদায়, জিম্মি পথচারীরা

‘বক্ষিলারে খা, নুনদুরে খা। আগুত্ন অর মীকমে নিয়ে পরীস্থানে যা।’ ভাবছেন কী এসব? আসলে এগুলো বেদেদের মন্ত্র। যা রীতিমতো জপ করে সাপ তো নয়, যেন মানুষ বসে আনার চেষ্টা চালায় তারা। ফুটপাত দিয়ে চলার সময় হঠাৎ সাপ হাতে ঘিরে ধরে বেদে মেয়ের দল। টাকা দিলেই ছাড়া হয় পথ। এতে একপ্রকার জিম্মি হয়েই ২০ টাকার একটা নোট দিয়ে ছাড়া পেতে দেখা যায় কলেজছাত্র আফজালকে।

এমন ঘটনা হরহামেশাই দেখা যায়, রাজধানীর সায়েন্স ল্যাবরেটরিসহ বেশ কয়েকটি এলাকায়। জামা-কাপড়, বেশভূষা দেখে অফিসগামীদেরই মূলত টার্গেট করে বেদে মেয়েদের দল। আর টাকা আদায় করার প্রধান হাতিয়ার পোটলা বা বক্সে থাকা সাপ।

সায়েন্স ল্যাবরেটরি মোড়ে বেদে মেয়েটির দলকে অনুসরণ করতেই আরও কয়েকজন ভুক্তভোগী অভিযোগ তুলতে দেখা যায়। তাদের সাথে কথা হয় এই প্রতিবেদকের। মধ্যবয়সী নাজমুস সাকিব জানায়, প্রয়োজনেই এ পথ ধরে যেতে হয়। মাঝে-মধ্যেই পড়তে হয় বেদে মেয়েদের খপ্পরে।

সাকিব নামে একজন বলেন, সায়েন্স ল্যাবরেটরি মোড়ের পদচারী সেতু দিয়ে যাচ্ছিলাম। হঠাৎ ঘিরে ধরে বেদে মেয়েরা। ধমকের সুরে কথা বলতেই অশালীন অঙ্গভঙ্গি করা শুরু করে। শরীরের দিকে এগিয়ে আসে সাপ নিয়ে। কমপক্ষে ১০ টাকা হলেও দিতে হয়। এমন বিব্রত পরিস্থিতির একটা সমাধান দরকার।

ঢাকা মেইলের অনুসন্ধানে দেখা যায়, সায়েন্স ল্যাবরেটরি এলাকায় প্রতিনিয়ত এভাবে পথচারীদের হয়রনি করছে সাপ নিয়ে ঘুরে বেড়ানো বেদে মেয়ের দল। এ নিয়ে অভিযোগের অন্ত না থাকলেও দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা নিরব। যেন কিছুই করার নেই। মাঝে মধ্যে দলটিকে কয়েকটি দলে বিভক্ত হতেও দেখা গেছে।

রাজধানীর নিউমার্কেট, শাহবাগ, ফার্মগেট, গুলশান, নতুন বাজার, শেওড়াপাড়া, জিগাতলা, সিদ্ধেশ্বরী, টিটিপাড়ায় বেদে দলের দেখা মিলে। অনেকেই বলছেন, একটি সঙ্গবদ্ধ চক্র এর সাথে জড়িত। এদের এখনি না থামালে হিজড়া-ভিক্ষুক সমস্যার ন্যায় আরও জটিল আকার ধারণ করবে।

অভিযোগ আছে কম বয়সী শিশুদের পরিবারেকে জিম্মি করে টাকা আদায় করে দলটি। এক্ষেত্রে স্কুলে সন্তানদের নেওয়া অভিবাবকরা পড়েন বিপাকে।

bede

গুলশান নতুন বাজার এলাকার রেশমা বেগম নামে এক অভিভাবক অভিযোগ করে বলেন, শিশুদের নিয়ে এরা টানাহেঁচড়া করে। সাপের ভয়ে মুখ শুকিয়ে যায় বাচ্চাদের। পরে বাচ্চারা বাসায় টয়লেট বা বারান্দায় একা যেতেও ভয় পায়।

এ নিয়ে অনুসরণ করতে থাকা বেদে দল এই প্রতিবেদককে জানায়, মানুষ থেকে টাকা না তুললে খাবো কি।

ভয় দেখানোর কারণ জানতে চাইলে তারা বলে, এমনি এমনি কে টাকা দেয়? এখন তো আর মানুষ বাতের ব্যথার সিঙ্গা, দাঁতের পোকাও তোলে না। না হলে আমরা বাঁচবো কি করে।

সাপের ভয় দেখিয়ে টাকা তোলা নিয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন, বক্ষিলা (সাপ) নিয়া কথা বললে অভিশাপ দিবো। ধ্বংস হয়ে যাবে।

ডিএইচডি/এএস