৯৯৯ এ কলে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল দুই কিশোরী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪ জুলাই ২০২২, ০৫:২৫ পিএম
৯৯৯ এ কলে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল দুই কিশোরী
ফাইল ছবি

জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯ এ কল পেয়ে পুলিশ ও প্রশাসনের অভিযানে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেয়েছেন নড়াইল ও রংপুরের দুই কিশোরী।

সোমবার (৪ জুলাই) দুপুরে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯ এর পরিদর্শক আনোয়ার সাত্তার এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আনোয়ার সাত্তার জানান, রোববার দেশের নড়াইল ও রংপুর জেলা সদরে ওই দুটি বাল্যবিয়ে সংঘটিত হতে চলেছিল। তবে সচেতন দুইজন ব্যক্তির ফোনকল পেয়ে তা বন্ধ করা হয়েছে। এতে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেয়েছেন ১৩ বছর বয়সী ওই দুই কিশোরী। এরমধ্যে একজন সপ্তম শ্রেণিতে অধ্যয়নরত।

৯৯৯ এর এই পরিদর্শক জানান, রোববার দুপুর দেড়টার দিকে নড়াইল সদর উপজেলার বাঘডাঙ্গা গ্রাম থেকে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বরে একটি কল আসে। পরে জানানো হয়- ওই গ্রামে রাতে একটি বাল্যবিবাহ সংঘটিত হবে। ওই সময় ফোনকলটি গ্রহণ করেন কনস্টেবল জাভেদ। পরে তিনি দ্রুত বিষয়টি নড়াইল সদর থানা পুলিশকে অবগত করেন।

ওই খবরে পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পরে নড়াইল থানা পুলিশ স্থানীয় চেয়ারম্যান ও জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে বর এবং কনে পক্ষের অভিভাবকদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। এরপর উভয় পক্ষকে বাল্যবিয়ের কুফল সম্পর্কে বুঝিয়ে পুলিশ বাল্য বিবাহ বন্ধ করতে সক্ষম হয় বলে নিশ্চিত করেছেন নড়াইল সদর থানার এএসআই প্রণব রায়।

এদিকে, একই রাতে রংপুর জেলা শহরের কোতোয়ালি থানার আলমনগর এলাকা থেকে পৃথক আরেকটি ফোনকল আসে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বরে। সে সময় জানানো হয়- ১৩ বছর বয়সী এক কিশোরীকে তার অভিভাবক বিয়ে দিচ্ছেন। এমন খবরে বিষয়টি দ্রুত রংপুর কোতোয়ালি থানা পুলিশকে জানানো হয়।

এ বিষয়ে রংপুর কোতোয়ালি থানার এসআই রাসেল ইসলাম জানান, জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯ থেকে তাদের জানানো হয় রংপুরের আলমনগর এলাকায় একটি বাল্য বিবাহ সংঘটিত হচ্ছে। পরে এমন খবরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ওই কিশোরীর বাড়ি অন্যখানে হলেও রংপুর শহরে এক আত্মীয়ের বাড়িতে এনে তার বিয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পরে পুলিশ সেই ঠিকানা নিশ্চিত হয়ে ঘটনাস্থলে যায়। এরপর বর ও কনের অভিভাবকদের সঙ্গে আলোচনায় বসে বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে সক্ষম হন।

এমআইকে/আইএইচ