ঈদের আগে সড়কে বাড়তি চাপ, যানজট

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪ জুলাই ২০২২, ০৫:১৯ পিএম
ঈদের আগে সড়কে বাড়তি চাপ, যানজট
প্রগতি সরণি সড়কে গাড়ির জট। ছবি: ঢাকা মেইল

ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে রাজধানীতে বেড়েছে কর্মচাঞ্চল্য। দৈনন্দিন রুটিন কাজের পাশাপাশি ঈদ কেনাকাটা ও পশুর হাটে যাতায়াতের কারণে রাস্তায় মানুষ ও গাড়ি উভয়ের চাপ বেড়েছে। আগামী বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ঢাকার রাস্তায় গাড়ি ও মানুষের এই চাপ থাকতে পারে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।  

সোমবার (৪ জুলাই) সকাল থেকেই রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে যানজট দেখা যায়। বেলা বাড়ার সাথে সাথে যানজট বাড়তে থাকে। এদিন রাজধানীর বিজয় সরণির যানজট সংসদের উত্তর-পূর্ব কর্নারে বিমান মোড় পর্যন্ত গড়ায়। ফলে মিরপুর ১০ থেকে আসা গাড়ি কিংবা গণভবনের সামনে থাকা আসা গাড়িগুলো মোড়ে এসে দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এছাড়াও বিজয় সরণি মোড়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় দিক থেকে আসা গাড়িগুলোর জন্য সিগন্যাল খোলা থাকলেও অপর দিকে ফার্মগেট থেকে আসা গাড়ির দীর্ঘ সারি লক্ষ্য করা যায়।

বনানীতেও দীর্ঘ গাড়ির সারি দেখা যায়। গুলশান, নতুন বাজার, মেরুল বাড্ডা, মালিবাগ, শান্তিনগর এলাকায়ও এদিন যানজট দেখা গেছে। বাড্ডার সড়কে সুবাস্তু ভ্যালির সামনের দোকানদার জুয়েল ঢাকা মেইলকে বলেন, এই সড়কে যানজট প্রায়ই থাকে, এখন ঈদের কারণে ভিড় আরও বেশি। অনেকেই মার্কেটে আসছে, আবার অফিসের লোক, সব মিলে সড়কে গাড়ি আর মানুষ।

রাজধানীর মিরপুর, শেওড়াপাড়া, কাজীপাড়া, কল্যাণপুর, শ্যামলী, আসাদগেটেও যানজট লেগে থাকার খবর পাওয়া গেছে। এসব রাস্তায় যানবাহনের গতি ছিল সীমিত। এদিন রাজধানীর অনেক এলাকায় হঠাৎ বৃষ্টিতে যানজট আরও তীব্র আকার ধারণ করে।

jot2

মহাখালী বাস টার্মিনাল থেথে বাস বের হতে বেশ সময় লাগছে। বাসগুলো বের হয়ে তিব্বতের সামনে ইউটার্ন নিয়ে মহাখালী পার হতেই ৩০-৪০ মিনিট সময় লেগে যায়। যানজটের কারণে কোনো কোনো বাসের এক ঘণ্টার মতো সময় লেগে যায়। মহাখালীতে দায়িত্বরত ট্রাফিক বিভাগের কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঢাকা মেইলকে বলেন, সামনে ঈদ, মানুষ বাড়ি যাচ্ছে। সামনের কয়েকটি দিন গাড়ির জট বাড়াটা স্বাভাবিক। আবার এখন অনেকেই শপিংয়ে বের হচ্ছেন। রাতে পশুর ট্রাক ঢুকছে, দিনে সেই পশু অনেকেই দেখতে বের হচ্ছেন, সব মিলে গাড়ির চাপ বেড়েছে।

রাজধানীর ফার্মগেটে যানজটে অতিষ্ঠ হয়ে বাংলামোটর পর্যন্ত হেঁটে আসেন বদরুল। একটি গুরুত্বপূর্ণ চিঠি দিতে আসেন তিনি। ২০ মিনিটের মতো হাঁটেন। বিশ্রাম নেওয়ার ফাঁকে ঢাকা মেইলকে বলেন, ‘আমি বাসে উঠে প্রায় ৪০ মিনিট খামারবাড়ি থেকে ফার্মগেটের সড়কে উঠতে পারিনি। পরে ভাড়া দিয়ে নেমে হেঁটেই এসেছি। এখন হেঁটেই যাবো, রাস্তার পরিস্থিতি ভালো না।’

গুলশানে দায়িত্বরত ট্রাফিক কর্মকর্তা বলেন, ঈদের আগে যানজট একটু বেশি থাকে। তবে আমরা চেষ্টা করছি জনসাধারণের ভোগান্তি কমাতে। পুলিশের দায়িত্ব পালনে অবহেলা নেই। প্রত্যেকটি সদস্য আপ্রাণ চেষ্টা করেন প্রতিটি মানুষ যেন সঠিক সময়ে গন্তব্যে যেতে পারে।
এদিকে, বিভিন্ন বাস টার্মিনালে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতিদিনই বাসস্ট্যান্ডে মানুষের ভিড় বাড়ছে। চলতি সপ্তাহের শেষ দিকে সেই ভিড় আরও বাড়বে। আগামী বৃহস্পতিবার থেকে নগরবাসীর ঢাকা ছাড়ার হিড়িক পড়বে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

ডব্লিউএইচ/জেবি