ফলের রসের বদলে ডায়াবেটিক রোগীদের ভরসা যে পানীয়তে

ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৩ জুন ২০২২, ০১:৫৫ পিএম
ফলের রসের বদলে ডায়াবেটিক রোগীদের ভরসা যে পানীয়তে

ডায়াবেটিক রোগীদের খাওয়া-দাওয়াতে নানা রকম বিধিনিষেধ আছে। কী খাবেন, কখন খাবেন, কতটা খাবেন— সবই কড়া নিয়মের মধ্যে বাঁধা পড়ে। যাদের চা-কফি খাওয়ার নেশা, তাদের বিনা চিনিতে তা খাওয়ার অভ্যাস করতে হয়। গরমে তৃষ্ণা মেটানোর জন্য যে নিশ্চিন্তে ফলের রস খাবেন, সে উপায়ও নেই ডায়াবেটিক রোগীদের।

ফল খাওয়ায় কোনও সমস্যা নেই। কিন্তু ফলের রস বানালে ফলের ফাইবার সব কমে গিয়ে ফ্রুকটোজে পরিণত হয়। 

juiceফ্রুকটোজ অতি সহজেই রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। তাই কোন ধরনের পানীয় নিশ্চিন্তে খাওয়া যায়, তা নিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েন ডায়াবেটিক রোগীরা। কিন্তু এমন কিছু পানীয় রয়েছে যা গরমে সহজেই আপনি খেতে পারেন। এতে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রিত থাকবে। জেনে নিন সেসব পানীয় সম্পর্কে।

লেমোনেড

রোদ থেকে ফিরে লেমোনেড পান করতে কার না ভাল লাগে। বানানোও সহজ। ঠান্ডা পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে নিলেই হয়ে গেল। শুধু চিনির বদলে অল্প মধু বা গুড় দিতে পারেন। এই পানীয় আরও স্বাস্থ্যকর করে তুলতে সঙ্গে এক টেবিল চামচ চিয়া বীজও মেশাতে পারেন।

juiceভেষজ চা

গ্রিন টি, ওলোং টি, হোয়াইট টির মতো চা চিনি ছাড়া খেতে পারেন চাপ্রেমীরা। তা ছাড়াও অনায়াসে খেতে পারেন বিভিন্ন ভেষজ চা। আদা চা, পেপারমিন্ট টি, ক্যামোমাইল টি বা দারুচিনির চায়ের মতো নানা ভেষজ চা ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য দারুণ উপকারী। এতে ক্যালোরি খুব কম থাকে, বাড়তি চিনি না থাকায় রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রিত থাকে এবং এই চাগুলো অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টে ভরপুর হয়।

juiceসবজির রস

ফলের রসের বদলে সবজির রস সহজেই খেতে পারেন ডায়াবেটিক রোগীরা। শসা-ব্রকোলির রস, বিটরুটে-গাজরের রস, পালংয়ের রস-জাতীয় বিভিন্ন সবজির পান করে খেতে কোনও বাঁধা নেই ডায়াবেটিক রোগীদের।

এজেড