যেভাবে যত্ন নিলে ১০ বছর পরেও নতুন থাকবে জামদানি

লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৫ জুন ২০২২, ১০:০২ এএম
যেভাবে যত্ন নিলে ১০ বছর পরেও নতুন থাকবে জামদানি
জামদানি শাড়িতে অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন (ছবি: সংগৃহীত)

বাঙালি নারীর শাড়িপ্রীতির কথা সবাই জানেন। কিছু শাড়ির প্রতি নারীদের ভালোবাসা থাকে একটু বেশি। এই তালিকায় ওপরের দিকের রয়েছে জামদানি শাড়ি। আদুরে স্বভাবের এই শাড়ি পরতে হয় সাবধানে। এর যত্নও নিতে হয় বিশেষ নিয়মে। নয়ত ভাঁজ করা শাড়িতে হঠাৎ করেই দেখা দিতে পারে চিড়। সাধের শাড়িখানা হতে পারে বাতিল। 

সঠিক নিয়ম মেনে ঢাকাই জামদানির যত্ন নিতে পারলে তা অনেকদিন পর্যন্তই ভালো থাকে। কীভাবে যত্ন নেবেন জেনে নিন। 

পানিতে একদমই কাচা যাবে না 

বাইরে থেকে ফিরে পানিতে জামদানি শাড়ি ভেজানোর মধ্যে কাজ ভুলেও করবেন না। এই শাড়ি তৈরির সময় বিশেষ কায়দায় মাড় দেওয়া হয়। পানির সংস্পর্শে তার চলে তন্তু ঢিলে হয়ে যায়। এতে শাড়ির মারাত্মক ক্ষতি হয়। এছাড়া জামদানিতে জরি সুতার কাজ থাকে। পানিতে কাচলে তা নষ্ট হয়ে যায়।

jamdani বিশেষ এই শাড়ি ড্রাই ওয়াশও করা যায় না। এতে রঙ নষ্ট হয়ে যায়। সবথেকে ভালো হয় জামদানি শাড়ি যদি কাটা ওয়াশ করিয়ে নিতে পারেন। দক্ষ তাঁতিকে দিয়ে কাটা ওয়াশ করালে শাড়ি আবার নতুনের মতো হয়ে যাবে। 

রোদে দেওয়ার নিয়ম 

ঘন ঘন জামদানী শাড়ি কাচার বা কাটা ওয়াশ করানোর প্রয়োজন নেই। কোনো অনুষ্ঠানে গেলে, ঘরে ফিরে শাড়িটি প্রথমে ফ্যানের বাতাসে ছড়িয়ে রাখুন। এই শাড়ি সরাসরি রোদে দেওয়া যায় না। তবে ছায়াযুক্ত স্থানে মেলে দিতে পারেন। ছায়া থাকবে কিন্তু রোদের তাপ এসে লাগবে- এমন জায়গায় রাখুন। কিছুক্ষণ পর পর উল্টে পাল্টে দিন। এতে শাড়ি ভালো থাকে। 

পর না হলেও মাঝেমধ্যে আলমারি থেকে বের করে শাড়ি এমন রোদে উল্টে পাল্টে রাখুন। রোদ থেকে এনেই আলমারিতে তুলে রেখে দিবেন না। কিছুক্ষণ এমনি বাতাসে রেখে তারপর তুলে রাখুন। ঘাম বা বৃষ্টির পানিতে শাড়ি ভিজে গেলেও এই পদ্ধতি কাজে লাগাতে পারেন। 

jamdaniআলমারিতে রাখার নিয়ম 

জামদানি শাড়ি কিন্তু অন্য শাড়ির মতো ভাঁজ করে রাখা যায় না। এতে শাড়ির তন্তুতে দ্রুত চিড় ধরে। খেয়াল করে তাঁতঘরে জামদানি রোল করে রাখা হয়। বাজারে এখন রোলার পাওয়া যায়। পছন্দের শাড়ির জন্য তেমন রোলার কিনে ফেলুন। কিংবা ৪/৫ ইঞ্চির ব্যাসের প্লাস্টিকের পাইপ ব্যবহার করতে পারেন। ভাঁজ করে রাখলেও কিছুদিন পর পর ভাঁজ বদলে দিন। আলমারিতে অবশ্যই কীটনাশক দিয়ে রাখবেন। 

ফলস ছাড়া পরবেন না 

জামদানি শাড়ি কখনোই ফলস না লাগিয়ে পরবেন না। এই শাড়ি খুব হালকা ধরনের হয়। ফলস ছাড়া পরলে তা শাড়ির ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। দ্রুত শাড়ি নষ্ট হয়ে যায়। 

badhonতুলে রাখা চলবে না 

প্রিয় জামদানি শাড়িটি আলমারিতে তুলে রেখেছেন আপনি। ভাবছেন, এই শাড়ি দিনের পর দিন তুলে রাখলেই হয়তো ভালো থাকবে। অন্যান্য শাড়ির ক্ষেত্রে তাই করা হয়। কিন্তু জামদানির ক্ষেত্রে এই কাজটি করতে গেলেই আপনি ভুল করবেন। এই শাড়ি তুলে রাখলে তার ক্ষতি হবেই। জামদানি শাড়ি ভালো রাখার একমাত্র উপায় হলো, নিয়মিত তা ব্যবহার করা। তাই তুলে না রেখে, মাঝেমধ্যে শাড়ি পরুন। 

নতুন করে রং করিয়ে নিতে পারেন

শাড়ি পালিশের প্রচলন বেশ পুরনো। দীর্ঘদিন ব্যবহার করলে জামদানি শাড়ির রঙ নষ্ট হয়ে যায়। এই শাড়ি নতুন করে রঙ করিয়ে নিতে পারেন। এক্ষেত্রে শাড়িটি এক রঙের হলে ভালো হয়। একাধিক রঙ থাকা জামদানি শাড়িতে রং করা যায় না। তখন এই পদ্ধতি কাজে লাগাতে পারবেন না। 

jamdaniছোট্ট টিপস: জামদানি শাড়িতে ছোটখাটো কোনো দাগ পড়লে ট্যালকম পাউডার ছড়িয়ে দিন। স্পট ট্রিটমেন্ট করে রোদে শুকিয়ে নিতে পারেন। অল্প অংশের রঙ নষ্ট হলে কেবল সেই অংশটুকু রঙ করিয়ে নিতে পারেন। 

আপনার সাধের জামদানি শাড়িটির সঠিক যত্ন নিন। তাহলে দীর্ঘদিন নতুনের মতো থাকবে তা। 

এনএম