নিয়োগকারীর নজরে আসার ৩ কৌশল

চাকরি ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ এপ্রিল ২০২২, ০৩:৫০ পিএম
নিয়োগকারীর নজরে আসার ৩ কৌশল

চাকরি না পাওয়া নিয়ে হতাশ সুমন। এই পর্যন্ত অনেকগুলো চাকরির জন্যই আবেদন করেছেন। কিন্তু ডাক পড়েনি কোথা থেকেও। পড়াশোনায় ভালো, রয়েছে যোগ্যতাও। তবুও কেন নিয়োগকারীদের কাছে গ্রহণযোগ্য হচ্ছেন না সুমন? 

বর্তমান চাকরির বাজার বেশ চ্যালেঞ্জিং। যোগ্য প্রতিপক্ষকে টেক্কা দিয়ে এগিয়ে যেতে পারলেই নিয়োগকারীর নজরে পড়া যায়। মেলে চাকরি। সুমনের মতো অনেকেই যোগ্যতা থাকার পরও চাকরির ডাক পাচ্ছেন না। এর জন্য দায়ী ছোট্ট কিছু ভুল। তিনটি সহজ কৌশল কাজে লাগিয়ে নিয়োগকারীর নজরে আসতে পারেন। 

jobসমাধান হোন

যে পদের জন্য আবেদন করবেন তাকে সমস্যা ধরে নিন। এবার নিজের দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে সমস্যার সমাধান খুঁজুন। পদটির জন্য যে আপনি উপযুক্ত তা প্রমাণ করতে সিভিতে লিখুন। নিয়োগকারীরা এমন কাউকেই খোঁজেন যিনি পদটির জন্য উপযুক্ত। আপনার কভার লেটার কিংবা সিভিতে যেন স্পষ্ট বোঝা যায় দক্ষতা। সেই পদটির জন্য আপনাকে উপযুক্ত মনে করলে নিয়োগকারী অবশ্যই আপনাকে ডাকবে। চাকরিও মিলবে। 

নিজের প্রচার করুন

জীবনবৃত্তান্ত বা সিভি হলো নিজেকে প্রচার করার সবচেয়ে উপযুক্ত মাধ্যম। জীবনে কী কী অর্জন করেছেন তা দিয়ে সিভি দীর্ঘ করার কোনো প্রয়োজন নেই। বরং এটা নিশ্চিত করুন যে চাকরিদাতা যা চাচ্ছে তা আপনার সিভিতে রয়েছে কি না। এক সিভিতে সব চাকরি খুঁজবেন না। নির্দিষ্ট চাকরির জন্য নির্দিষ্ট তথ্য দিয়ে সিভি সাজান। 

একটি সিভি দেখার জন্য নিয়োগকারী মাত্র ৭ সেকেন্ড সময় নেন। অর্থাৎ, সিভিতে চোখ বুলিয়ে যদি দেখেন আপনি তাদের পদটির জন্য উপযুক্ত নন, তখনই আপনাকে বাতিল করে দেবে। সিভিতে প্রাসঙ্গিক যোগ্যতা আর অভিজ্ঞতা যোগ করুন। চাকরিদাতার নজরে পড়বেন দ্রুত।  

jobপ্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জ্ঞান রাখুন

আপনার সিভি নিয়োগকারীর পছন্দ হলে ইন্টারভিউয়ের ডাক পাবেন। এই ধাপে নিয়োগকারী আপনার যোগ্যতা যাচাই করবেন। একই সঙ্গে তাদের প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে আপনার জ্ঞান রয়েছে কি না তা পরীক্ষা করবেন। ইন্টারভিউতে যাওয়ার আগে তাই প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে একটু ঘাঁটাঘাঁটি করুন। প্রাথমিক তথ্যগুলো জেনে রাখুন। সেসঙ্গে যে পদের জন্য আবেদন করেছেন তা সম্পর্কেও ধারণা নিয়ে রাখুন। 

নিয়োগকারীরা যেন আপনার উত্তর শুনে বুঝতে পারে তাদের প্রতিষ্ঠানের পদটির জন্য আপনিই উপযুক্ত। চাকরির ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে অগ্রিম জ্ঞান রাখা ইন্টারভিউয়ের জন্য বেশ উপকারি। একই সঙ্গে চাকরির শুরুর সময় পরিস্থিতি সহজ করে দেয় এই জ্ঞান। 

এই ছোট্ট  তিন বিষয়ে খেয়াল রেখে পরেরবার চাকরির জন্য আবেদন করুন। সফলতা মিলবে সহজে।

এনএম/এজেড