বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন, ২০২৪, ঢাকা

রাহুলের এমপি পদ বাতিলে নড়েচড়ে বসেছে কংগ্রেস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৪ মার্চ ২০২৩, ০৮:২৪ পিএম

শেয়ার করুন:

রাহুলের এমপি পদ বাতিলে নড়েচড়ে বসেছে কংগ্রেস

দলের গুরুত্বপূর্ণ নেতা ও গান্ধী পরিবারের চেরাগ খ্যাত রাহুল গান্ধী লোকসভার সদস্যপদ হারানোর ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছে ভারতের প্রধান বিরোধী দল সর্বভারতীয় কংগ্রেস। করণীয় ঠিক করতে দফায় দফায় বৈঠক করছে দলটি। বিরোধী রাজনৈতিক শক্তির সঙ্গে  ঐক্য আরও জোরদার করে বিজেপিবিরোধী লড়াই চালিয়ে যেতে চায় টানা দুই মেয়াদ ধরে ক্ষমতার বাইরে থাকা ঐতিহ্যবাহী দল কংগ্রেস।   

২০১৯ সালের এক মানহানির মামলায় রাহুলকে দোষী সাব্যস্ত করেছে গুজরাটের সুরাটের একটি আদালত। সেই মামলায় রাহুলের দুই বছরের কারাদণ্ড হয়। শুক্রবার (২৪ মার্চ) রাহুল গান্ধীর লোকসভার সদস্যপদ খারিজ করে দেন স্পিকার।


বিজ্ঞাপন


রাহুল গান্ধী এমপি পদ খোয়ানোর পর করণীয় স্থির করতে বসেন ইউপিএ চেয়ারপারসন সনিয়া গান্ধী। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পি চিদাম্বরম, জয়রাম রমেশ, কংগ্রেসের সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গে, প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ভাদ্রা, কেসি ভেনুগোপাল, জয়রাম রমেশ, রাজীব শুক্লা, তারিক আনোয়ার, সিনিয়র নেতা আনন্দ শর্মা, অম্বিকা সোনি, মুকুল ওয়াসনিক, সালমান খুরশিদ এবং পবন কুমার বনসালসহ অনেকেই।

পদ খোয়ানোর পর রাহুল গান্ধী তার প্রতিক্রিয়ায় জানান, ‘আমি দেশের কণ্ঠের জন্য লড়াই করছি। আর এর জন্য কোনো রকমের মূল্য চোকাতে আমি তৈরি।’

মোদী গড় গুজরাটের সুরাটের জেলা আদালতের এই মামলার রায়ের প্রেক্ষাপটে রাহুলের এমপি পদ খারিজ হওয়ার ঘটনায় জাতীয় রাজনীতিতে ব্যাপক তোলপাড় তৈরি হয়েছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে অরবিন্দ কেজরিওয়াল পর্যন্ত একাধিক বিরোধী নেতানেত্রী এই ইস্যুতে সরব হয়েছেন।

R2


বিজ্ঞাপন


এদিকে গোটা দেশজুড়েই বিজেপির বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামছে কংগ্রেস। বিরোধী সব শক্তিকে একত্রিত করে মোদিবিরোধী জোট আরও জোরদার করার ছক আঁকছে কংগ্রেস।

লোকসভায় কংগ্রেসের নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী বলেছেন, এটা পুরোপুরি সরকারের প্রতিহিংসামূলক কাজ। রাহুল ভারত জোড়ো যাত্রায় অসাধারণ সাড়া পেয়েছিলেন দেখে ভয় পেয়ে সরকার এই কাজ করলো।

প্রবীণ কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিং বলেছেন, 'রাহুল গান্ধীকে সংসদে আদানি নিয়ে বলতেই দিল না বিজেপি। এবার তো সাংসদপদ নিয়ে নিল। কিন্তু জনতার কাছে যাওয়া তো রুখতে পারবেন না মোদী-শাহ। কংগ্রেসের সব নেতাকর্মী জনতার দরবারে যাবে।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় কংগ্রেস সভাপতি ও লোকসভার বিরোধী দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়্গে বলেছেন, ওরা (বিজেপি) সবসময়ই তাকে অযোগ্য ঘোষণা করার চেষ্টা করছিল। যারা সত্যি কথা বলে ওরা তাদের সংসদে রাখতে চায় না। তবে আমরা সত্য কথা বলা থামাব না। আমদের যৌথ সংসদীয় কমিটির দাবিও থামবে না। প্রয়োজনে গণতন্ত্রকে বাঁচাতে আমরা জেলে যাব।

রাহুল গান্ধীর বোন ও দলের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধী এক টুইট বার্তায় বলেছেন, ‘নীরব মোদি কেলেঙ্কারি– ১৪ হাজার কোটি রুপি। ললিত মোদি কেলেঙ্কারি– ৪২৫ কোটি রুপি। মেহুল চোকসি কেলেঙ্কারি – ১৩ হাজার ৫০০ কোটি। যারা দেশের টাকা লুট করেছে, তাদের উদ্ধারে কেন এগিয়ে এলো বিজেপি? তদন্তের কথা বললেই তারা পালাচ্ছে কেন? এই নিয়ে যারা প্রশ্ন তুলছেন, তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হচ্ছে। বিজেপি কি দুর্নীতিবাজদের সমর্থন করে?

RRR3

এই ইস্যুতে কথা বলেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিও। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক বার্তায় তিনি বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী মোদির নতুন ভারতে বিরোধী নেতারা বিজেপির প্রধান লক্ষ্যে পরিণত হয়েছেন। একদিকে ফৌজদারি অপরাধের রেকর্ড থাকা বিজেপি নেতাদের মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে, অন্যদিকে বিরোধী নেতাদের শুধুমাত্র তাদের বক্তব্যের কারণে পার্লামেন্টে অযোগ্য ঘোষণা করা হচ্ছে।

আইনজ্ঞরা জানিয়েছেন, উচ্চ আদালত যদি সুরাত আদালতের এই নির্দেশ খারিজ করে দেয়, তাহলে একমাত্র রাহুল গান্ধী আবার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারবেন। ফলে ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে রাহুল আদৌ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারবেন কি না, সেই প্রশ্ন থেকে গেল।

রাহুল ভোটের আগে জনসভায় বলেছিলেন, শুধু মোদীদের বিরুদ্ধেই কেন দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। তারপর গুজরাটের বিজেপি নেতা রাহুলের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেন। সেই মামলায় রাহুলকে দোষী সাব্যস্ত করে দুই বছরের কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছে সুরাতের আদালত।

জেবি

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর