পরমাণু সমঝোতা ইসুতে ইরানের সদিচ্ছা ও আন্তরিকতার কমতি নেই’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ২২ মে ২০২২, ০৮:৫৯ পিএম
পরমাণু সমঝোতা ইসুতে ইরানের সদিচ্ছা ও আন্তরিকতার কমতি নেই’
জোসেপ বোরেল ও হোসেইন আমির আব্দুল্লাহিয়ান (ডানে)

ভিয়েনায় পরমাণু সমঝোতা ইসুতে চুক্তি স্বাক্ষরের ব্যাপারে ইরানের সদিচ্ছা ও আন্তরিকতার কোনো অভাব নেই বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এ সময় তিনি ভিয়েনা সংলাপে অংশগ্রহণকারী অপর পক্ষগুলোকে একইরকম সদিচ্ছা ও আন্তরিকতা প্রদর্শনের আহ্বান জানান।

ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির-আব্দুল্লাহিয়ান বলেছেন, তার দেশ পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের লক্ষ্যে আয়োজিত ভিয়েনা সংলাপের মাধ্যমে পাশ্চাত্যের সঙ্গে একটি শক্তিশালী ও টেকসই চুক্তি স্বাক্ষরে বদ্ধপরিকর। সম্প্রতি তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়ন বা ইইউ’র পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান কর্মকর্তা জোসেপ বোরেলের সঙ্গে এক টেলিফোনালাপে তার দেশের এ অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

এ সময় বোরেল পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের আলোচনায় ইরানের আন্তরিকতার প্রশংসা করে বলেন, সব পক্ষ আবার সংলাপে বসে বিষয়টির একটি চূড়ান্ত নিষ্পত্তি করতে চায়। তিনি ভিয়েনা সংলাপ থেকে একটি ‘ভালো ফলাফল’ বেরিয়ে আসার প্রত্যাশী বলে উল্লেখ করেন। বোরেল বলেন, পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের ব্যাপারে ইরান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার মতপার্থক্য কমিয়ে আনার চেষ্টা করছে ইইউ।

২০১৫ সালে ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে ইরানের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা থেকে ২০১৮ সালে তৎকালীন মার্কিন প্রশাসন বেরিয়ে গেলে এটি বাস্তবায়ন নিয়ে চরম অনিশ্চয়তা দেখা দেয়। পরবর্তীতে ইউরোপীয় দেশগুলোর অসহযোগিতার কারণে পরমাণু সমঝোতা কাগজে কলমে টিকে থাকলেও বাস্তবে অকার্যকর হয়ে পড়ে। এটি আবার কার্যকর করার জন্য অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় গত এক বছরেরও বেশি সময় ধরে পাঁচ জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে ইরানের সংলাপ চলছে। অবশ্য গত এক মাসেরও বেশি সময় ধরে এই আলোচনায় বিরতি চলছে।

সূত্র : পার্সটুডে

এমইউ