রোববার, ২১ এপ্রিল, ২০২৪, ঢাকা

এ বছর কয়েকটি বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছি: হিমি

রাফিউজ্জামান রাফি
প্রকাশিত: ১০ ডিসেম্বর ২০২৩, ০৭:২৪ পিএম

শেয়ার করুন:

এ বছর কয়েকটি বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছি: হিমি
অল্পদিনে ছোটপর্দায় দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছেন জান্নাতুল সুমাইয়া হিমি। জীবনঘনিষ্ঠ চরিত্রে অনবদ্য অভিনয় করে দর্শকের মনের জমি দখল করেছেন তিনি। জনপ্রিয়তা ও ব্যস্ততার ভিড়বাট্টা সামলে একের পর এক কাজ করছেন। তার নাটক দেখতে ইউটিউবে মৌমাছির মতো ভিড় করেন দর্শক। ঢাকা মেইলের কাছে হিমি খুলেছিলেন মনের আগল।

বর্তমান ব্যস্ততা কী নিয়ে? 


বিজ্ঞাপন


ব্যস্ততার পুরোটাই এক ঘণ্টার নাটক নিয়ে। এর ফাঁকে টিভিসি ও ওভিসির কাজ করা হচ্ছে। 

নাটকগুলোতে আপনার বিপরীতে কারা থাকছেন?

অধিকাংশ নাটকেই আমার বিপরীতে নিলয় আলমগীর থাকেন। এছাড়া মোশাররফ করিম ভাই, অপূর্ব ভাইয়ের সঙ্গেও করা হয়। তবে এ মাসে সবগুলো নাটকে নিলয় আলমগীরের সঙ্গে কাজ করা হচ্ছে।

366741632_1204506647159990_4523951329724695953_n


বিজ্ঞাপন


বিজয় দিবসে কোনো নাটক আসছে আপনার?

না, এবার বিজয় দিবসের জন্য কোনো কাজ করা হয়নি। গতবার করেছিলাম। দুটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে বিজয় দিবসের দুটি নাটক প্রচার হয়েছিল আমার। এবার বিজয় দিবসে দেশের বাইরে শুটিংয়ের পরিকল্পনা আছে।

আরও পড়ুন: প্রার্থিতা ফিরে পেলেন কণ্ঠশিল্পী ডলি সায়ন্তনী

বিজয় দিবসের নাটক নিয়ে অভিজ্ঞতা কেমন?

এই নাটকগুলোর প্রস্তুতিটা অন্যগুলোর থেকে বেশি নিতে হয়। কস্টিউম, ওই সময়কাল ধরার চেষ্টা, কোন চরিত্রে অভিনয় করছি— সব মিলিয়ে বিজয় দিবস বা বিশেষ দিবসের নাটকে প্রস্তুতি বেশি নিতে হয়। পরিশ্রম, মনোযোগ বেশি দিতে হয়। কারণ আমরা সচরাচর যে সমস্ত কাজ করি তার চেয়ে এই নাটকগুলোর পটভূমিটা ভিন্ন থাকে। তবে ভালো লাগা কাজ করে।

থার্টি ফার্স্ট নাইট নিয়ে পরিকল্পনা কী?

থার্টি ফার্স্ট নাইট নিয়ে আমার কখনও আলাদা পরিকল্পনা থাকে না। তবে একেক বছর একেক ভাবে কাটে। বছর দুয়েক আগে একটি আহত বিড়ালের সেবা করে সারারাত কেটেছিল। গতবার বাসাতেই কেটেছে। এবার সব ঠিক থাকলে ওই সময়টা দেশের বাইরে শুটিংয়ের কাজে ব্যস্ত থাকতে হবে।

391599384_1243224439954877_1085797630307538199_n

২০২৩ কেমন কাটল?

বছরটা আমার খুব ভালো কেটেছে। কাজের ভীষণ ব্যস্ততা ছিল। দর্শকের ভালোবাসা পেয়েছি। তবে ক্যারিয়ারে এই মোড়টা না এলে চিত্র ভিন্ন হতো। পরিকল্পনা ছিল বিবিএ শেষ করে দেশের বাইরে চলে যাব মাস্টার্স করতে। কিন্তু যখন দেখলাম কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েছি, দর্শকের সাড়া পাচ্ছি, আমারও ভালো লাগছে তখন আগের পরিকল্পনাগুলো বাদ দিতে হয়েছে। এ বছর জীবন সম্পর্কিত বড় কয়েকটি সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

আরও পড়ুন: শাকিবকে নিয়ে করা মন্তব্যের ব্যাখ্যা দিলেন জায়েদ

আপনাকে বস্তির তরুণী, ঝগড়াটে, গ্রামের তরুণীর চরিত্রে বেশি দেখা যায়। এরকম কাজ আসে বলেই করেন নাকি নিজের আগ্রহের জায়গা থেকে করা হয়?

একটি বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্রীর চরিত্র, কিংবা প্রেমের গল্পে অভিনয় করতে ভালোই লাগে। কিন্তু কিছু চরিত্র আছে যেমন বস্তির মেয়ে, পোশাক শ্রমিক— এই চরিত্রগুলোতে আমি বেশি আগ্রহী। কারণ এগুলোতে নিজেকে ভাঙার সুযোগ থাকে। চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেই। তাছাড়া অভিজ্ঞতাও হয়। যেমন বস্তিতে কাজ করার সুবাদে ওখানকার অনেকের সঙ্গে আমাদের পরিচয় হয়ে গেছে। শুটিং দেখলে তারা আসেন। এরকম একবার আমি দাঁড়িয়ে আছি তারা এসেছে নায়িকা খুঁজতে। কিন্তু আমাকে চিনতে পারছে না। আমাকেই জিজ্ঞেস করছে নায়িকা এসেছে কি না। আমি তাদের মতো করেই উত্তর দিচ্ছি— হ্যাঁ নায়িকা এসেছে। এই বিষয়গুলো ভালো লাগে। 

অনেক ধরনের চরিত্রে দেখা যায়। কিন্তু দর্শকের মতে, আপনাকে বউয়ের চরিত্রে বেশি ভালো লাগে। ঠিক কী কারণে?  
মাঝখানে এমন কিছু নাটক করা হয়েছে যেগুলো বিয়ে সম্পর্কিত ছিল। এজন্যই চোখে পড়েছে বিষয়টি। তাছাড়া আমাদের এখানে কোনো এক ঘরানার কাজ দিয়ে শুরু হলে ওই ধরণের কাজই আসতে থাকে। সে কারণে বিয়ে বিষয়ক নাটক বেশি করতে হয়েছে। এজন্যই হয়তো চোখে পড়েছে বিষয়টি।

366377903_1195944904682831_5091265424271829926_n

নিলয় আলমগীরসহ কয়েকজন অভিনয়শিল্পী আছেন, আপনার প্রায় নাটকেই তাদের দেখা যায়। একই সহশিল্পীর সঙ্গে কাজ করার সুবিধা ও অসুবিধা কতখানি?

একসঙ্গে কাজ করার সুবাদে বোঝাপড়া ভালো থাকে। একজনের শরীর খারাপ থাকলে তার অংশগুলো আগে করে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। পারিবারিক ও বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কাজের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে না পারলে পরামর্শ করা যায়। কাজটি করা ঠিক হবে কি না— জিজ্ঞেস করা যায়। নিলয় ভাই, কিংবা মাসুম আংকেল (ফখরুল বাশার মাসুম) বা অন্য যারা আছেন তাদের সঙ্গে শেয়ার করতে পারি, পরামর্শ চাইতে পারি। এগুলো হচ্ছে সুবিধা। অসুবিধা তেমন নেই। তবে মাঝে মাঝে অনেক আর্টিস্টদের সঙ্গে অনেকদিন পর দেখা হয়। যাদের সঙ্গে কাজ হয় না। তাদের মিস করি।

কোনো কাজ মানসম্মত না তবুও করতে হচ্ছে, এমন অভিজ্ঞতা হয়েছে?

শুরুর দিকে হয়েছে। যখন কোনো একটি নাটকের গল্প শোনাতো, মনে হতো ভালো কিছু হতে যাচ্ছে। কিন্তু শুটিংয়ে যাওয়ার পর গড়মিল পেতাম। তখন বিষয়গুলো নিয়ে বলার মতো অবস্থান আমার ছিল না। তাছাড়া এমনিতেও আমি স্বল্পভাষী। তাই বলতে পারতাম না। কিন্তু এরকম অভিজ্ঞতা যাদের সঙ্গে হতো পরে তাদের এড়িয়ে গেছি। এখনকার চিত্র ভিন্ন। অনেকের সঙ্গে নিয়মিত কাজ করা হচ্ছে। বুঝতে পারি কার কাজ কেমন, কার আউটপুট কেমন হবে। তাছাড়া কখনও কোনো জায়গায় আলোচনা করার মনে হলে পরিচালকের সঙ্গে শেয়ার করি। বোঝাই কাজটি এরকম না হয়ে অন্যরকম হলে ভালো হতো। দেখা যায় পরিচালকও সংশোধন করেন।

367389343_1202221740721814_2231408145007431560_n

নাটক থেকে অনেকেই ওয়েব সিরিজে যুক্ত হচ্ছেন। আপনার খবর কী?

ওয়েব নিয়ে এখনও সেরকম পরিকল্পনা হয়নি। আর যারা ওয়েবে কাজ করছেন, তারা অনেকদিন নাটকে কাজ করার পর জায়গা বদলেছেন। আমার এখনও ওই সময় হয়নি। তাছাড়া আমি নাটক এনজয় করছি। আর পরিকল্পনামাফিক কোনো কিছু হয় না আমার। দেখা যাবে হুট করে একদিন করে ফেলেছি। তবে ভালো কাজ তো সবাই করতে চায়। সেরকম কাজের সুযোগ এলে করে ফেলব।

আপনার শুরু হয়েছিল সিনেমার মাধ্যমে। নতুন করে কী সিনেমায় দেখা যাবে?

সিনেমা নিয়ে তেমন কথা হচ্ছে না। তবে যে কয়েকটি কাজ এসেছে সেগুলো তেমন মানসম্মত মনে হয়নি। যেহেতু নাটকে যে কাজ করছি সেটা নিয়ে আমি সন্তুষ্ট তাই সিনেমার ক্ষেত্রে এর চেয়ে ভালো কিছু প্রত্যাশা করি। সেরকম সুযোগ এলে ভেবে দেখব।

প্রেম করলে তো জানাবেন না। বিয়ে নিয়েই জানতে চাইছি। কয় বছর পর বিয়ে করবেন?

বিয়ে নিয়ে ভাবছি না। তাই কয় বছর পরে করব সেটাও বলতে পারছি না। আর প্রেম থাকলে অবশ্যই জানাতাম। কিন্তু এখন কোনো প্রেম নেই। বিয়ের ব্যাপারটাও মাথায় নাই। এখনও আমি ছোট। লম্বা দেখে অনেকে বড় মনে করেন। কিন্তু বয়স অতো বেশি না। 

আরআর

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর