ইডেন কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতির অডিও নিয়ে তোলপাড়

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২০ আগস্ট ২০২২, ০২:৩৫ এএম
ইডেন কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতির অডিও নিয়ে তোলপাড়

ছাত্রলীগের কর্মসূচি অংশগ্রহণ না করায় হলের শিক্ষার্থীদের ওপর চড়াও হয়েছেন ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের এক নেত্রী। অকথ্য ভাষায় গালিগালাজও করেছেন তিনি। এমন একটি অডিও এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এটি নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে তোলপাড়।  

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অশালীন ভাষায় গালমন্দকারী তামান্না জেসমিন রিভা। তিনি ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি। ফাঁস হওয়া অডিওটি যে তার সেটা তিনি নিজেও স্বীকার করেছেন।   

অডিওতে শোনা যায়, '(প্রকাশ অযোগ্য শব্দ) বেশি চ্যাটাং চ্যাটাং করতেছোস। এক পায়ে পাড়া দিমু, আরেক পা টাইনা ধইরা ছিঁড়া ফেলমু। চার মাস হয়ে গেছে, ফাইজলামি শুরু করছিস। তোরা লিগ্যাল তাতে আমার (প্রকাশ অযোগ্য শব্দ) গেছে। কোন হেডাম দেখাইতে আসিস তোরা। আমার পলিটিক্যাল রুমে তোরা লিগ্যাল থাকবি কি না, সেটা তোদের বিষয়। কে কে টাকা জমা দিছিস? আমারে দিছিস? আর কে লিগ্যাল?' ২০২ - এ (আবাসিক হলের কক্ষ নং) আর লিগ্যাল কে? তোরা লিগ্যাল তাতে আমার কী (প্রকাশ অযোগ্য শব্দ) গেছে? বল? আমি কি (প্রকাশ অযোগ্য শব্দ) তোদের। চ্যাটাং চ্যাটাং করতেছোস। এক পায়ে পাড়া দিমু, আরেক পা টাইনা ধইরা ছিঁড়া ফেলমু। চারমাস হয়ে গেছে ফাইজলামি শুরু করছিস।’

আরও পড়ুন: ইডেন ছাত্রলীগ নিয়ে কেন এত আলোচনা?

এক ছাত্রীকে উদ্দেশ্য করে রিভা বলেন, 'বুঝিস না, পলিটিক্যাল রুমে থাকিস। তোদের লিগ্যাল করাইছে, তাতে আমার (প্রকাশ অযোগ্য শব্দ) কী? আমি যদি একটা সিট না দেই, ২০২ থেকে তোদের কোন বাপ সিট দেবে? ম্যাডামরা দেবে? ক্ষমতা আছে ম্যাডামদের?'

odi

সভাপতির ক্ষমতা জাহির করে তিনি বলেন, 'একটা সিঙ্গেল মেয়ে যদি ওই রুমে এসে কন্ট্রোল করতে চায়, সে হোক নেত্রী, ইডেন কলেজের প্রিন্সিপাল ম্যামও কোনো মেয়ে দিতে পারবে না। এটুকু সেন্স থাকা উচিত ছিল। রুমটা যেহেতু ইডেন কলেজের প্রেসিডেন্ট নিয়ে নিছে, ইডেন কলেজের প্রেসিডেন্টের ওপরে আর কেউ নাই।'

এদিকে অডিওর সত্যতা স্বীকার করেছেন ইডেন ছাত্রলীগের সভাপতি। তিনি বলেন, 'মেয়েরা প্রোগ্রামে যায়নি। তাই তাদের একটু বলতে আসছিলাম।'

রিভা বলেন, 'তারা প্রোগ্রাম না করায় তাদের রুম থেকে শিফট করার কথা বলছি।'

রিভার দাবি করেন, হল প্রশাসন সবাইকে কক্ষ পরিবর্তন করাতে পারবে না।

২০২ নং কক্ষটি তার নিজের 'দেখভাল করা রুম' উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'আমি এখানে যেভাবে ভাল হবে, সেভাবে শিফট করাবো। এটা আমার এখতিয়ার।'

তবে ইডেন কর্তৃপক্ষ বলছে, হল থেকে কাউকে বের করার এখতিয়ার হল কর্তৃপক্ষই। অন্য কেউ তা পারে না।

এদিকে ওই অডিওর বিষয়ে গণমাধ্যমে কথা বলতে নারাজ ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা।

কারই/জেবি