কুবিতে খাবার বন্ধ করে ক্যাফেটেরিয়ায় অনুষ্ঠান, শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ

জুবায়ের রহমান কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ২৫ জুন ২০২২, ০৬:৩৬ পিএম
কুবিতে খাবার বন্ধ করে ক্যাফেটেরিয়ায় অনুষ্ঠান, শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ১৬ বছর পেরিয়ে গেলেও এখানে নেই কোনো অডিটোরিয়াম। যেকোনো সেমিনার, কর্মশালা ও অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের একমাত্র কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়াতে। এতে ক্যাফেটেরিয়াটি অডিটোরিয়ামের বলি হচ্ছে বলে মনে করেন শিক্ষার্থীরা। কার্যদিবসে ক্যাফেটেরিয়া বন্ধ রেখে এসব অনুষ্ঠান করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্টরা।

শিক্ষার্থীরা জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের সাত হাজার সদস্যের খাবারের জন্য রয়েছে একটি মাত্র ক্যাফেটেরিয়া। চলতি মাসেই অন্তত চারটি বিভাগ ও সংগঠন বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে সেখানে। সর্বশেষ একটি বিভাগের নবীন বরণ ও বিদায়ী অনুষ্ঠানের জন্য সারাদিন বন্ধ ছিল ক্যাফেটেরিয়া। এসব অনুষ্ঠানের দিন বাইরে থেকে চড়া দামে খাবার কিনে খেতে হয় তাদের। বাইরে একবেলা খাবার খেতেই ক্যাফেটেরিয়ার দ্বিগুণ মূল্য পরিশোধ করতে হয় বলে জানান তারা৷

রাইসুল ইসলাম নামের এক শিক্ষার্থী ঢাকা মেইলকে বলেন, ‘আমি যে টাকা দিয়ে ক্যাফেটেরিয়ায় তিনবেলা খেতে পারি, সে টাকা দিয়ে বাইরে দুই বেলা খেতে হিমশিম খেতে হয়।’

সাইফুল ইসলাম নামের নৃবিজ্ঞান বিভাগের এক শিক্ষার্থী ঢাকা মেইলকে বলেন, ‘খাবারের স্থানকে অডিটোরিয়ামে পরিণত করেছে কর্তৃপক্ষ৷ শিক্ষার্থীদের ভোগান্তির কথা না ভেবে নীরব ভূমিকা পালন করেছে প্রশাসন।’ 

লোকপ্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী খাইরুল বাশার সাকিব ঢাকা মেইলকে বলেন, অডিটোরিয়ামের বলি ক্যাফেটেরিয়া। প্রোগ্রামের দিনে কখনও আংশিক বা পুরোপুরি বন্ধ থাকে। অথচ শিক্ষার্থীদের বৃহৎ অংশ ক্যাফেটেরিয়ার ওপর নির্ভরশীল। বিষয়টি প্রশাসন ও ক্যাফেটেরিয়া কর্তৃপক্ষের মাথায় রাখা উচিত।  

এদিকে ক্যাফেটেরিয়ায় অনুষ্ঠানের আয়োজন উপলক্ষে খাবার পরিবেশন বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। ক্যাফেটেরিয়ার পরিচালক মান্নু মজুমদার ঢাকা মেইলকে বলেন, আমাকে বলা হয় যাতে বাহিরে লিখে দিই খাবার অফ। এর বাইরে আমার কিছু করার নেই৷ 

মান্নু বলেন, বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন বিভাগ ও সংগঠন এখানে অনুষ্ঠান পরিচালনা করে৷ কখনও অর্ধেক খোলা রেখে আবার কখনও পূর্ণাঙ্গ বন্ধ রাখতে নির্দেশ করেন তারা। এখানে যারা আয়োজন করে শুধু তাদের খাবারের অর্ডার পেয়ে থাকি৷

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরামর্শক ও নির্দেশনা কার্যালয়ের পরিচালক ড. মোহা. হাবিবুর রহমান ঢাকা মেইলকে বলেন, ছাত্রদের খাওয়া দাওয়া বন্ধ করে এই ধরনের অনুষ্ঠান করা কতটুকু যৌক্তিক তা নিয়ে আমি প্রশাসনের সাথে কথা বলবো। ক্যাফেটেরিয়ায় আর যেন এই ধরনের অনুষ্ঠান না হয় সেজন্য আমি উপাচার্য স্যারের সাথে কথা বলবো।

জেবি