রোববার, ২৩ জুন, ২০২৪, ঢাকা

‘টেলিকম সেবায় ও ব্যবহারে বাজেটে কোনো সুখবর নেই’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩ জুন ২০২৩, ১২:৫৬ এএম

শেয়ার করুন:

‘টেলিকম সেবায় ও ব্যবহারে বাজেটে কোনো সুখবর নেই’

প্রস্তাবিত বাজেটে টেলিযোগাযোগ ও প্রযুক্তির সেবার ব্যবহারকারীদের জন্য কোনো সুখবর নেই বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক এসোসিয়েশন। শুক্রবার (২ জুন) ২০২৩-২৪ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট পর্যবেক্ষণ করে এই মতামত দিয়েছেন সংগঠনটির সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটকে ২০২৩-২৪ বলা হচ্ছে স্মার্ট বাজেট। কিন্তু স্মার্ট বাজেটের ৪টি স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম স্মার্ট সোসাইটি, স্মার্ট কানেক্টিভিটি ও স্মার্ট অর্থনীতি পরিশেষে স্মার্ট জনগণ। এই ৪টি খাতে উন্নয়ন করতে হলে একজন নাগরিকের চাই সাশ্রয়ী মূল্যে ইন্টারনেট সেবা এবং ইন্টারনেট ব্যবহার করার জন্য চাই স্মার্ট ডিভাইস। কিন্তু স্মার্ট বাজেটের কথা বললেও স্মার্ট কানেক্টিভিটির অন্তরায় তৈরি করে প্রস্তাবিত বাজেটে হ্যান্ডসেট ডিভাইসের ওপর ৩ থেকে ৫ শতাংশ কর নতুন করে আরোপ করা হয়েছে।


বিজ্ঞাপন


তিনি আরও বলেন, তাছাড়া আমদানির ওপর পূর্বের ৫৮ শতাংশ সাথে নতুন করে কর যুক্ত করা হয়েছে। হলে দেশের যেখানে এখনো ৪৪ শতাংশ নাগরিক ইন্টারনেট কানেক্টিভিটিতে যুক্ত হতে পারেনি তাদের ক্ষেত্রে বড় প্রতিবন্ধকতা তৈরি হবে। তাছাড়া ক্যাশলেস বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে হলে সবার হাতে স্মার্ট ডিভাইস অত্যন্ত জরুরি। অন্যদিকে মোবাইল ইন্টারনেট ও ভয়েজ কলের ক্ষেত্রে ৩৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ ভ্যাট অব্যাহত রয়েছে। এক্ষেত্রেও একটি অপারেটরকে সিম ট্যাক্স রাজস্ব ভাগাভাগির এবং মধ্যস্বত্ত সেবার কর মিলিয়ে প্রায় ৫৮ শতাংশ কর অপারেটরকে দিতে হয়।

মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, আমরা আশা করেছিলাম গ্রাহক সেবার ক্ষেত্রে হয়তো কিছুটা কর কমানো হতে পারে। ব্রডব্যান্ড সেবার ক্ষেত্রেও ১৫ শতাংশ কর অব্যাহত আছে। কেবলমাত্র ফাইবার কেবল উৎপাদনের জন্য ৫ শতাংশ কর কমানো হয়েছে। ফাইবার ক্যাবলে কর কমানোর ফলে ইন্টারনেট সেবাদানকারী আইএসপি প্রতিষ্ঠানের হয়তো কিছুটা লাভ হবে কিন্তু গ্রাহক পর্যায়ের সুফল খুব একটা মিলবে না। আমরা মনে করি এখনো সময় আছে স্মার্ট বাজেটকে স্মার্ট বাজেট তৈরির সহায়ক সকল শক্তিতে সরকার-কর কমিয়ে আনবে।

টিএই/এইউ

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর