নতুন নকশায় ফের তৈরি হবে বিএম ডিপো

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৩ জুন ২০২২, ০৭:০৩ এএম
নতুন নকশায় ফের তৈরি হবে বিএম ডিপো

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোর অবয়বে পরিবর্তন আসছে। অপারেশনাল কার্যক্রম পুনরায় শুরু না হলেও ডিপোটিকে নতুন করে তৈরির পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে ডিপো কর্তৃপক্ষ। ভয়াবহ বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডে এখানে প্রাণ হারান ৪৯ জন। যাদের অধিকাংশই এ ডিপোর কর্মকর্তা-কর্মচারী। ওই দুর্ঘটনায় আহত হয়ে এখনো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরও অনেকেই। এত হতাহতের শোক আর আর্থিক ক্ষতি কাটিয়ে আবারও উঠে দাঁড়ানোর প্রস্তুতি শুরু করেছে বিএম ডিপো। এরইমধ্যে ডিপোর নতুন নকশা তৈরির প্রাথমিক কার্যক্রমও শেষ করেছে প্রতিষ্ঠানটি। বিষয়টি জানিয়ে সরকারি ১০ সংস্থাকে চিঠি দিয়েছে বিএম কনটেইনার ডিপো কর্তৃপক্ষ।

গত ৪ জুন রাত ৯টায় বিস্ফোরণের পর থেকে ডিপোর অপারেশনাল কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। এরপর থেকে চিঠি দিয়ে ডিপোর অপারেশনাল কার্যক্রম বন্ধ রাখে কাস্টমস কর্তৃপক্ষও। দুর্ঘটনার পর গঠিত হয় বেশ কয়েকটি তদন্ত কমিটি। তদন্ত কমিটিগুলো তাদের কাজ এখনো শেষ না করলেও বন্দর ও কাস্টমসের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে ডিপোতে থাকা কন্টেইনারগুলো পরীক্ষার কাজ শুরু করেছে ডিপো কর্তৃপক্ষ। এরইমধ্যে পণ্যভর্তি ১৫শ টিইইউ’স কন্টেইনার অক্ষত হিসেবে পাওয়া গেছে বলে বিএম ডিপো কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। তার মধ্যে ৮৫০ টিইইউ’স রফতানি পণ্য এবং বাকিটা আমদানি পণ্য। এসব পণ্যের মধ্যে তৈরিপোশাক, নিটওয়্যার, অ্যাগ্রো প্রসেস ফুডসহ বিভিন্ন ধরনের রফতানি পণ্য রয়েছে। পাশাপাশি খাদ্যসামগ্রীসহ শিল্পের বিভিন্ন কাঁচামাল বাদেও রয়েছে প্যাকেজিং সামগ্রীও।

এ বিষয়ে বুধবার (২২ জুন) বিএম কনটেইনার ডিপোর জেনারেল ম্যানেজার ক্যাপ্টেন (অব.) মাইনুল আহসান খান বলেন, কাস্টমস এবং বন্দর আমাদের অপারেশনাল কার্যক্রমের কোনো অনুমতি দেয়নি। আমরা এখনো পুরো ডিপোর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ করছি। নতুন অবকাঠামো নির্মাণ করা হচ্ছে না। তবে আমরা পুরো ডিপোটি রি-কন্সট্রাকশন (পুনর্নির্মাণ) করবো। এরইমধ্যে আমরা একটি ভবিষ্যত পরিকল্পনা তেরি করেছি। আগামী সপ্তাহ থেকে এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন শুরু করবো।

তিনি বলেন, নকশা এবং পরিকল্পনার প্রাথমিক কাজ শেষ। এখন চূড়ান্ত করা হচ্ছে। পাশাপাশি বিষয়টি অবগত করে বন্দর, কাস্টমস, বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, ফায়ার সার্ভিস, পরিবেশ অধিদপ্তর, পিডিবি, সীতাকুণ্ড থানা, বিস্ফোরক অধিদপ্তরসহ ১০ প্রতিষ্ঠানকে আমরা চিঠি দিয়েছি।

একেবি