রোববার, ২৬ মে, ২০২৪, ঢাকা

শাবনূরের পর ধুমধাম করে স্বপ্নার বিয়ে দিলেন এমপি

জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৩ জুন ২০২৩, ০৩:১৫ পিএম

শেয়ার করুন:

শাবনূরের পর ধুমধাম করে স্বপ্নার বিয়ে দিলেন এমপি

জমিতে ধান কাটতে গিয়ে স্টোক করে মারা যান দরিদ্র কৃষক সিরাজুল ইসলাম। এতে দুই কন্যাকে নিয়ে বিপদে পরেন তার স্ত্রী রূপবান। ২০১৯ সালের ২৫ এপ্রিলের এই ঘটনা নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ করা হয়। বিষয়টি তখন নজরে আসে স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজের। 

তিনি তার স্ত্রী ডা. হাফিজা সুলতানাকে নিয়ে হাজির হন রূপবানের বাড়িতে। এ সময় নিহত কৃষকের স্কুলপড়ুয়া দুই মেয়ে শাবনূর (১৬) ও স্বপ্নার (১৫) পড়াশুনা ও বিয়ের দায়িত্ব নিয়েছিলেন তারা। 


বিজ্ঞাপন


দুই মাসের মাথায় ঘর নির্মাণ ও ঘরের সমস্ত ফার্নিচার কিনে দেন। এরপর গত চার বছরে লেখাপড়ার ব্যায়ের পাশাপাশি ঈদসহ বিভিন্ন উৎসবে সংসদ সদস্য স্ব শরীরে হাজির হয়ে আর্থিক সহযোগীতা, ঈদ সামগ্রী বিতরণসহ সুখ দুঃখ ভাগাভাগি করে নিয়েছেন।

gg

বৃহস্পতিবার (১ জুন) বারুহাস ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মাসুদের মধ্যস্থতায় পারিবারিকভাবে ঠিক স্বপ্নার  (১৯) বিয়ে। একদিন পর ২ জুন রাত সাড়ে ৯টায় সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ চলে আসেন বিয়ে বাড়িতে। সেখানে বিয়ে করতে আসা বারুহাস ইউনিয়নের সরবাড়ী গ্রামের মো. রওশন আলীর ছেলে মো. আরিফের হাতে এতিম কন্যা স্বপ্নাকে তুলে দেন। এর আগে তার বড় বোন শাবনূরের বিয়ের সমস্ত দায়িত্ব এমপি আজিজ বহন করেছেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, তাড়াশ থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শহিদুল ইসলাম, তাড়াশ প্রেসক্লাবের সভাপতি সনাতন দাশ, ওয়ার্ড আ.লীগের সম্পাদক মো. আব্দুস সামাদ, ইউপি সদস্য আব্দুল হান্নান প্রমুখ।


বিজ্ঞাপন


gg

এ ব্যাপারে প্রয়াত সিরাজুল ইসলামের বিধবা স্ত্রী রূপবান খাতুন বলেন, এমপি আজিজের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আমার ঘর ছিল না, খাবার ছিল না, দুরবস্থা ছিল। এমপি সাহেব আমার  সবকিছু ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। আজ মেয়ে স্বপ্নার  বিয়ের সমস্ত দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়ে কন্যা দায় থেকে মুক্তি দিয়েছেন। এটি কখনো ভাবিনি। আল্লাহর কাছে দোয়া করি, উনি যেন ভালো থাকেন। এভাবেই মানুষের সেবা করে যেতে পারেন।

প্রতিনিধি/একেবি

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর