শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৪, ঢাকা

মোটরসাইকেলের এয়ার ফিল্টার কখন পরিবর্তন করা উচিত?

অটোমোবাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৫ মার্চ ২০২৩, ০২:২৫ পিএম

শেয়ার করুন:

মোটরসাইকেলের এয়ার ফিল্টার কখন পরিবর্তন করা উচিত?

বাইকের ইঞ্জিন চলার জন্য ফুয়েলের সঙ্গে প্রয়োজন বিশুদ্ধ বাতাস। কারণ, ইঞ্জিনে এয়ার ও ফুয়েল মিশ্রিত হয়ে বার্ন হয়। কিন্তু সাধারণত বাতাসে অনেক ধুলাবালি থাকে। এই ধুলোবালি থেকে ইঞ্জিনকে রক্ষা করতে এবং বিশুদ্ধ বাতাসের জন্য এয়ার ফিল্টার ব্যবহার করা হয়। বাইরে থেকে বাতাস এই এয়ার ফিল্টারের মধ্য দিয়ে বিশুদ্ধ হয়ে ইঞ্জিনে প্রবেশ করে।

এয়ার ফিল্টার অনেকটা জালের মত। দূষিত বাতাস এর মধ্য দিয়ে প্রবেশ করার সময় এতে সকল ধুলাবালি ও ময়লা আটকে যায়। আর তা জমতে জমতে এয়ার ফিল্টারের কার্যক্ষমতা শেষ হয়ে যায়। ফলে বিশুদ্ধ বাতাস ইঞ্জিনে প্রবেশ করতে পারে না। ফলে এটি পরিবর্তন করার প্রয়োজন হয়ে পড়ে। ঠিক সময়ে পরিবর্তন না করলে তা ইঞ্জিনের জন্য মারাত্মক ক্ষতির কারণ হয়।


বিজ্ঞাপন


bike-air-filterএয়ার ফিল্টার কতবার পরিবর্তন করা উচিত

বাইকের এয়ার ফিল্টার পরিষ্কার না করে সরাসরি পরিবর্তন করতে হবে। তবে কতবার পরিবর্তন করবেন তা নির্ভর করবে কত কিলোমিটার চালিয়েছেন এবং পরিবেশে কেমন ছিল তার উপর। অর্থাৎ যদি ধুলোবালির মধ্য দিয়ে চালান তাহলে তা দ্রুতই পরিবর্তন করতে হবে। সেটির উপর নির্ভর করে প্রতি ৩০০০ থেকে ৫০০০ কিলোমিটার চলার পর এটি পরিবর্তন করা উচিত।

সাধারণত এয়ার ফিল্টার পরিষ্কার করে পুনরায় ব্যবহার করা ঠিক নয়। তবে খরচ কমাতে নিয়মিত বাইকের এয়ার ফিল্টার পরিষ্কার করতে হবে। কত কিলোমিটার চালানো পর পরিষ্কার করবেন তা নির্ভর করবে বাইক চালানোর পরিবেশের উপর। তবে ৫০০ থেকে ৮০০ কিলোমিটার পর করাই ভালো। এভাবে একটি এয়ার ফিল্টার দিয়ে ৫০০০ কিলোমিটার বা তার বেশি চালানো যায়।

এয়ার ফিল্টার ছাড়া বাইক চালানো যাবে না। এটি না থাকলে ইঞ্জিন দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। কারণ, বাতাসের সঙ্গে ময়লা ধূলিকণা প্রবেশ করে। ফলে এয়ার ফুয়েল মিশ্রণ সঠিক ভাবে হয় না। এছাড়া ধুলাবালি বার্ন হয়ে ইঞ্জিনে বিষাক্ত গ্যাস তৈরি করে। ফলে ইঞ্জিনের শব্দ বেড়ে যাবে।


বিজ্ঞাপন


এমএইচটি

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর