রোববার, ২৩ জুন, ২০২৪, ঢাকা

দিনে সর্বোচ্চ কত ঘণ্টা ড্রাইভিং করা উচিত?

অটোমোবাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ২২ জুন ২০২৩, ০২:৩৮ পিএম

শেয়ার করুন:

দিনে সর্বোচ্চ কত ঘণ্টা ড্রাইভিং করা উচিত?

অনেকেই দীর্ঘক্ষণ ড্রাইভিং করেন। ফলে শরীর ক্লান্ত হয়ে দুর্ঘটনার ঝুঁকি রয়েছে। গাড়ি নিয়ে কতদূর যাওয়া উচিত তা নিয়ে অনেক পরামর্শ শোনা গেলেও সারা দিনে কতক্ষণ গাড়ি চালানো উচিত সেই নিয়ে অনেকেই সচেতন নয়। দিনের অধিকাংশ সময়ই কেটে যায় স্টিয়ারিংয়ে হাত দিয়ে। কিন্তু এর ফলে যে বিপদ ডেকে আনছেন আপনি তা কি জানেন?

দীর্ঘ ড্রাইভিংয়ের ফলে অনেক শারীরিক সমস্যার মুখে পড়তে পারেন আপনি। যেমন উচ্চ ব্লাড প্রেশার, ডায়াবেটিস ইত্যাদি। এছাড়া হাঁটু এবং ঘাড়েও ব্যথা হতে পারে। সমস্যা আসতে পারে পায়েও। এমনকি হতে পারে দুর্ঘটনাও।


বিজ্ঞাপন


carএক টানা গাড়ি চালানোর ফলে পায়ে রক্ত জমাটও হয়ে যেতে পারে। তাই ড্রাইভিংয়ের ক্ষেত্রে খুব সাধারণ একটি থাম্ব রুল রয়েছে যা হল সারা দিনে ৮ ঘণ্টার বেশি গাড়ি চালানো উচিত নয়। অনেকেই আছেন যারা দিনে ১২ থেকে ১৪ ঘণ্টা ড্রাইভিং করেন যা একেবারেই অনুচিত।

আপনার শরীরের যেমন বিশ্রাম দরকার তেমনই প্রত্যেক গাড়ির বিশ্রাম দরকার। কারণ গাড়ি যদি টানা অনেকক্ষণ চলতে থাকে তাহকে ইঞ্জিন ওভারহিট হতে পারে। গাড়ির সাসপেনশনে অত্যধিক চাপ তৈরি হতে পারে।

অনেকেই আছেন ঘুরতে গিয়ে এক টানা গাড়ি চালান। কিন্তু বিশেষজ্ঞদের মতে গাড়িকে যদি একটি নির্দিষ্ট সময় অন্তর বিশ্রাম না দেন তাহলে গাড়ির ইঞ্জিন ঠান্ডা হবে না। শুধু তাই নয় গাড়ি যদি বিশ্রাম না নেয় তাহলে তা মাইলেজে প্রভাব পড়ে।

carআগামীদিনে গাড়িতে নানা সমস্যা দেখা যেতে পারে। প্রত্যেক চালকদের সারা দিনে ৮ ঘণ্টার বেশি গাড়ি চালানো উচিত নয়। ঠিক তেমনই ড্রাইভিংয়ের জন্য মানসিক দিক থেকে প্রস্তুত থাকার জন্য প্রতি ২ ঘণ্টা অন্তর ১৫ মিনিট করে ব্রেক নেওয়া উচিত।


বিজ্ঞাপন


এই ব্রেক যদি বেশি হয় তাতেও কোনও অসুবিধা নেই। বরং এতে চালকের গাড়ির উপর নিয়ন্ত্রণ বজায় থাকবে। পুরো দিন জুড়ে চালকদের কমপক্ষে তিনটি ব্রেক নেওয়া উচিত। অর্থাৎ ড্রাইভিংয়ে সর্বাধিক ৭ ঘণ্টা ১৫ মিনিট সময় ব্যয় করা উচিত।

এই নিয়ম বিশেষ করে তাদের জন্য বেশি করে প্রযোজ্য যাদের আশেপাশে কোনও সহ পাইলট নেই। কারণ ড্রাইভিং করার সময় চালকের মধ্যে সতর্কতা এবং একাগ্রতা যদি না থাকে, সে যদি গাড়ির চারটি চাকায় ভালোভাবে ফোকাস না করতে পারে তাহলে দুর্ঘটনার সম্ভাবনা বেড়ে যেতে পারে।

এজেড

ঢাকা মেইলের খবর পেতে গুগল নিউজ চ্যানেল ফলো করুন

সর্বশেষ
জনপ্রিয়

সব খবর